kalerkantho


ফেসবুক থেকে পাওয়া

একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের ভালোবাসা

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের ভালোবাসা

যখন অনার্স চতুর্থ বর্ষের ছাত্র তখন বিয়ে করি। ও আর আমি একই বিভাগে পড়তাম। একটি ছোট রুম ভাড়া নিয়েছিলাম। আমরা নির্ভর করতাম ওর আর আমার টিউশনির টাকার ওপর। আমাদের মোটেও ভালো চলত না। এখন পড়া শেষ, চাকরির পরীক্ষার জন্য কিছু বই কিনেছি, কিন্তু পড়তে ইচ্ছা করে না। ভাবলাম কবিতা লেখা শুরু করি। কিন্তু তা মোটেও বউয়ের পছন্দ নয়। তাই মনে করলাম যদি কবিতায় ওর প্রশংসা করা যায়, তাহলে হয়তো আর কবিতা লিখতে মানা করবে না। কিন্তু ফল বিপরীত হলো। প্রতিদিন সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে চাকরির বইটা খুলে পাশে কাগজ-কলম নিয়ে কবিতা লিখতে বসে যাই।

ও সকালে রান্না করে কিন্তু বিভিন্ন ছুতায় মাঝেমধ্যে দেখে যায় আমি কী করি। ওর আসা টের পেলেই কবিতা লেখার কাগজের ওপর চাকরির পরীক্ষার বইটি তুলে দিই। ও চলে গেলে আবার কবিতা লেখা শুরু! আজ কিছুতেই কবিতার লাইন মেলাতে পারছি না। এদিকে ও চলে এলো কিছু খাবার নিয়ে, প্রতিদিনের মতো আজও বললাম, ফার্স্ট ক্লাস। কিন্তু ও গেল না প্রতিদিনের মতো। আমি বললাম কী হলো, এখন দেখি ওর চোখে পানি, ও বলল ফার্স্ট ক্লাস হলো কিভাবে, আজ তো আমি ইচ্ছা করেই লবণ দিইনি। আমি আর কিছু বলতে পারলাম না, শুধু ভাবলাম এখন চাকরি ছাড়া আর কিছু নয়।

 

মাওয়াহেবুর রহমান ত্বকী


মন্তব্য