kalerkantho


ভুল সবই ভুল

হিটলার নিরামিষাশী ছিলেন

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে, সেগুলো মিথ্যা। লিখছেন আসমা নুসরাত

৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



হিটলার নিরামিষাশী ছিলেন

গোয়েবল এটা প্রচার করেছিলেন। আরো বলেছিলেন, হিটলার ধূমপান করেন না, মদ খান না, তার নারী আসক্তি নেই।

এগুলো বলে গোয়েবল বোঝাতে চাইছিলেন, হিটলার সাধারণ মানুষ নন। তিনি অন্যদের চেয়ে আলাদা। তাঁর আত্মনিয়ন্ত্রণশক্তি অসাধারণ। এগুলোর মধ্যে একটিমাত্র সত্য আছে যে হিটলার ধূমপান করতেন না। আর একটাও সত্য নয়। হিটলার বিয়ার পছন্দ করতেন। ব্যাভারিয়ান সসেজ, গেইম পাই (বন্যপ্রাণীর গোশত থেকে তৈরি) পছন্দ করতেন। বেশি পছন্দ করতেন মসলাঠাসা কবুতর।

যেনতেন লোক নন, এসব কথা ফাঁস করেছেন স্বয়ং রবার্ট পাইন।

তিনি হিটলারের জীবনী লেখক। তিনি বলছেন, ‘হিটলার নিরামিষাশী ছিলেন’ কথাটি পরিষ্কার কল্পনাপ্রসূত।

এবার আসুন ডিওন লুকাসের কথায়। হিটলারকে অনেকবার রেঁধে খাইয়েছেন তিনি। বলেছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে হামবুর্গের একটি বড় হোটেলে কাজ করতেন। হিটলার সেখানে অনেকবারই এসেছেন। মসলাঠাসা কবুতর বা অন্য পাখি তিনি আয়েশ করে খেতেন।

এখন তবে আরেকটি প্রশ্ন, কেন কিছু লোক বিনা প্রশ্নে মেনে নিচ্ছেন হিটলার ভেজিটেরিয়ান ছিলেন? এর উত্তর অনেকে দিতে চাইছেন এভাবে, লোকগুলো আসলে ভেজিটেরিয়ানিজমের বিরুদ্ধে। তাঁরা হিটলারকে দেখিয়ে প্রমাণ করতে চান, ভেজিটেরিয়ান হলেই কেউ অহিংস হয় না কিংবা হয় না মহৎ মানুষ।

আসলে তো পৃথিবীর বিখ্যাত অনেক মানুষ ছিলেন নিরামিষাশী। মহাত্মা গান্ধী, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি, পিথাগোরাস, জর্জ বার্নার্ড শ, লেভ তলস্তয় প্রমুখ। তালিকাটি কম দীর্ঘ নয়। গোয়েবল চেয়েছিলেন এ তালিকায় হিটলারের নামও যুক্ত হোক।


মন্তব্য