kalerkantho


প্যারিসে 'বিকশিত অ্যাওয়ার্ড ২০১৮' অনুষ্ঠিত

আবু তাহির, ফ্রান্স থেকে    

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২১:৩০



প্যারিসে 'বিকশিত অ্যাওয়ার্ড ২০১৮' অনুষ্ঠিত

উন্নয়নকে টেকসই রূপ দিতে হলে নারীর প্রতি সব ধরনের বৈষম্য দূর করতে হবে। সমাজ পরিবর্তন ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে নারীর অবদান রয়েছে। নারীর এ অবদানকে মূল্যায়ন করা প্রয়োজন। গত শনিবার প্যারিসে অনুষ্ঠিত 'বিকশিত অ্যাওয়ার্ড' প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন নারী নেত্রীরা।

ফ্রান্সে ব্যবসা বাণিজ্যে প্রবাসী বাংলাদেশি নারীদের অবদানের স্বীকৃতি দিতে ফ্রান্সের বাংলাদেশি কমিউনিটির একমাত্র মহিলা সংগঠন বিকশিত নারী সংঘের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হলো বিকশিত অ্যাওয়ার্ড। ফ্রান্সে বসবাসরত বিপুল সংখ্যক নারীরা এতে অংশগ্রহণ করেন।

অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে বিকশিত নারী সংঘ ফ্রান্সের সভাপতি তৌফিকা সাহেদ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুমা দাস এর উপস্থাপনায় এ সময় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলা টিভি পরিচালক মীর শামস সান্তুনুর ,বাংলাদেশ দূতাবাস ফ্রান্সের প্রথম সচিব আনিসা রহমান ,দ্বিতীয় সচিব দয়াময়ী চক্রবর্তী।

ফ্রান্সে দীর্ঘদিন থেকে মূলধারার ব্যবসা বাণিজ্যে সম্পৃক্ত রেখে দেশে রেমিটেন্স প্রেরণ, ফ্রান্সে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও বাংলাদেশি কমিউনিটিতে বিশেষ অবদানের জন্য ২৫জন নারীকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তরা হলেন বদরুন নাহার আব্দুল্লাহ, উম্মে কুলসুম চৌধুরী, নাসরিন জাহান,  মিনা গোমেজ, ফাতেমা খাতুন, তৃষ্ণা সাইফুল, শামীমা আক্তার রুবি, দাতিন আবিদা সুলতানা, দেলোয়ার সরকার, হাবিব জেসমিন, শানু ভূঁইয়া, মনিকা জেসমিন, শোভা তালুকদার, রোমা পাল, সালমা সেলিম, নিপু হোসেন, শান্তনা চৌধুরী, সেলিনা আফজাল, লিটা ঘোষ, ফেন্সি আক্তার, রুমি আক্তার, ইয়াছমিন খানম, জান্নাতুল ফেরদৌস, সুমা দাস, ইসরাত জাহান লুসি।

এ সময় হাসনাত জাহান ও ফ্রেঞ্চ বাংলা স্কুল এর পরিচালক ফাতেমা খাতুনকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এ সময় বক্তারা বলেন, সমাজের সকল ক্ষেত্রে নারীর অধিকার নিশ্চিত করতে হলে শুধু আইন দিয়ে নয় বরং মনমানষিকতার ইতিবাচক পরিবর্তনের মাধ্যমেই তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব। সমাজে সকল ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ এর ফলে অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে নারীর অবদান পরিলক্ষেত হচ্ছে। কিন্তু এটা সামগ্রিক উন্নয়ন সাধনের ক্ষেত্রে যথেষ্ট নয়। অতীতে পারিবারিক কাজে পুরুষের নির্দিষ্ট কিছু ভূমিকা ছিল বর্তমানে সে সব ক্ষেত্রেও নারীরা সম অংশগ্রহণ করছে। কাজেই নারীদের কর্মকাণ্ড সমাজকে ধীরে ধীরে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করে।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে গান পরিবেশন করেন সুমা দাস, মুন্নি খন্দকার ও ইমতিয়াজ, আনিকা। এ সময় ইলিয়াস ও দিয়ান নৃত্য পরিবেশন করেন।



মন্তব্য