kalerkantho


পর্তুগালে প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের নিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের সভা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১২:৫৩



পর্তুগালে প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের নিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের সভা

সভায় অংশগ্রহণকারীদের গ্রুপ ফটো

‘উন্নয়নের রোল মডেল, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’- এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে পর্তুগালের লিসবনে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রবাসী ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। প্রবাসী ব্যবসায়ীদের দেশে বিনিয়োগ এবং সংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলোর সমাধান, ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ গঠনের লক্ষ্যে এ আয়োজন করা হয়। 

আরো পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম আতঙ্ক!

লিসবনের বাংলাদেশ হাউজে দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব হাসান তৌহিদ ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা ওয়েজ উদ্দিনের সমন্বয়ে ও সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত এই মতবিনিময় সভার সভাপতিত্ব করেন পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রুহুল আলম সিদ্দিকী। উক্ত মতবিনিময় সভায় যোগ দেন পর্তুগালের বিভিন্ন শহরের বসবাসরত শতাধিক প্রবাসী ব্যবসায়ীবৃন্দ। 

মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন শহর থেকে আসা ব্যাবসায়ীবৃন্দের স্বাগত জানান দূতাবাসের সহকারী কনস্যুলার মো. নূর উদ্দিন এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. সাহাব উদ্দিন। মতবিনিময় সভায় আগত ব্যাবসায়ীবৃন্দ তাদের পরিচয় তুলে ধরেন। সেই সঙ্গে ভিনদেশে বিভিন্ন ব্যসায়ীক সমস্যার কথা তুলে ধরার পাশাপাশি বাংলাদেশ বিমানবন্দরে প্রবাসীদের হয়রানির বিষয়েও কথা বলেন। 

ঢাকায় পর্তুগালের দূতাবাস স্থাপন, পর্তুগালে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশি নতুন প্রজন্মের জন্য একটি বাংলা স্কুল স্থাপন ও লিসবনের বাঙালি অধ্যুষিত রুয়া দো বেনফরমোসো সড়কটিকে রুয়া দো বাংলাদেশ নাম করনের জন্য দাবি জানান।

রাষ্ট্রদূত রুহুল আলম সিদ্দিকী তার বক্তব্যে বলেন, স্বাধীন হওয়ার পর অনেকেই বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলে অবহিত করেন। কিন্তু কালের পরিক্রমায় বাংলাদেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করতে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। 

আরো পড়ুন: আমিরাতের দুই কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা শুরু

তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক প্রবাসী এক এক জন রেমিটেন্স-যোদ্ধা এবং বাংলাদেশি অ্যাম্বাসাডর। বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের আমলে সূচিত উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন। প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে পৌঁছানোর জন্যই সরকারের এই প্রয়াস। সেই সাথে প্রবাসী ব্যাবসায়ীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য পর্তুগালের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করে সমাধানের ব্যাপারেও আশা ব্যক্ত করেন।

সব শেষে দূতাবাসের পক্ষ থেকে পর্তুগালের বিভিন্ন শহর থেকে আগত ব্যাবসায়ীদের সম্মানে দেশীয় নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়।  


মন্তব্য