kalerkantho


নথি প্রকাশ নিয়ে চরমে হোয়াইট হাউস-এফবিআই দ্বন্দ্ব

নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১১:৪৮



নথি প্রকাশ নিয়ে চরমে হোয়াইট হাউস-এফবিআই দ্বন্দ্ব

হোয়াইট হাউস-এফবিআই দ্বন্দ্ব এখন চরমে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা নেওয়ার পর থেকে বিতর্ক কখনই থেমে থাকেনি। দফায় দফায় আলোচনা-সমালোচনার পাত্র হয়েছেন ট্রাম্প। কখনো নারী কেলেঙ্কারি, কখনো মিথ্যা বলার অভিযোগ, কখনো নির্বাচনে রাশিয়ার প্রভাব। ট্রাম্পকে ঘিরে একের পর এক ইস্যু আলোচনায় রয়েছে। সর্বশেষ অভিযোগ উঠেছে, নথি প্রকাশ নিয়ে মার্কিন ফেডারেল গোয়েন্দা সংস্থার (এফবিআই) দিকে।

রিপাবলিকানদের দীর্ঘদিনের অভিযোগ, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্পের প্রচারে নজরদারি করেছে এফবিআই। বুধবার ট্রাম্প এ সংক্রান্ত নথি প্রকাশের ঘোষণা দেওয়ার পর এফবিআই তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলছে, বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নজরে রেখেছে তারা। 

গোয়েন্দা সংস্থাটি জানায়, তারা এর যথার্থতা নিয়ে সন্দিহান। কারণ মেমো অনেক কিছু বাদ দেওয়া হয়েছে বলে তথ্য পেয়েছেন তারা। রিপাবলিকানদের অভিযোগ, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচারে নজরদারি চালিয়েছিল গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই। সেই নজরদারির তথ্য প্রকাশ করতেই নথিটি সামনে আনছেন ট্রাম্প।

গত বুধবার ফক্স নিউজকে দেওয়া সাক্ষাতকারে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ জন কেলি বলেন, খুব শিগগিরই এ সংক্রান্ত নথি প্রকাশ করা হবে এবং বিশ্ব দেখবে। 

এর আগে মঙ্গলবার স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণেও ট্রাম্প রিপাবলিকান এক কংগ্রেসম্যানকে বলেছিলেন, তিনি ওই নথিটি শতকরা একশ ভাগই প্রকাশ করতে চান। 

চলতি সপ্তাহে হাউস ইন্টেলিজেন্স কমিটি নথি প্রকাশের অনুমতি দেয়। এটি তৈরি করেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান ডেভিন নানিস। কীভাবে গোয়েন্দারা নজরদারি বা সার্ভিলেন্স করেছে তা নিয়ে বর্ণনা রয়েছে সেই নথিতে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এফবিআইয়ের অনুরোধ ছিল নথিটি যেন না প্রকাশ করা হয়। আর ডেমোক্র্যাটদের দাবি ছিল, রাশিয়ার হস্তক্ষেপের তদন্ত আড়াল করতেই নথি প্রকাশ করছে ট্রাম্প প্রশাসন।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ডোনাল্ড ট্রাম্প ও এফবিআইয়ের পরিচালক ক্রিস্টোফারের মধ্যে দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্যে। গোয়েন্দা নথিটিকে কেন্দ্র করে বুধবার তাদের মধ্যে সংঘাতময় অবস্থা প্রকাশ্যে চলে এসেছে। এতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্বাচনী টিম ও রুশ সংযোগ তদন্ত নিয়ে প্রেসিডেন্ট ও তদন্তকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে উত্তেজনা আরও বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।



মন্তব্য