kalerkantho


সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচারের জন্য ট্রাইবুনাল গঠনের দাবি

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

১৬ নভেম্বর, ২০১৭ ০২:৫৬



সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচারের জন্য ট্রাইবুনাল গঠনের দাবি

ছবি : কালের কণ্ঠ

সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচারের জন্য ট্রাইবুনাল গঠনের দাবি জানিয়েছেন ইউনাইটেড বেঙ্গলি ফোরাম ইউএসএ। গত রবিবার নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি রেস্তোরাঁয় ‘বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রুখে দাঁড়াও’ শিরোনামের একটি প্রতিবাদ সভায় বক্তারা এ দাবি জানান।

 

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত যত সংখ্যালগু নির্যাতন হয়েছে তার একটারও কোনো সুষ্ঠু বিচার হয়নি। তাই এই বর্বরতা বেড়েই চলেছে। সরকারের কাছে আমাদের দাবি একটি বিচারবিভাগীয় ট্রাইবুনাল গঠন করে এ সকল ধর্মীয় সন্ত্রাসী হামলা লুটতরাজের বিচার করুন। সম্প্রতি রংপুরে সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দা জানিয়ে এই কথা গুলো বলেন মাইনরিটি এক্টিভিস্ট শিতাংশু গুহ।  

সাংবাদিক তোফাজ্জল লিটনের সঞ্চালনায় এই সভার সভাপতির বক্তব্যে শিতাংশু গুহ আরো বলেন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্ব মিডিয়া ‘মানবতার মা’ হিবেবে আখ্যা দিয়েছে। আমি বলি হিন্দুরাওতো মানুষ তাদের জন্য কী আপনার মানবতা কাজ করে না ? প্রতিবাদ সভায় অতিথি হিসেবে মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিক প্রবাসী’র সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ। ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি নিউ ইয়র্কে চ্যাপ্টারের সভাপতি ফাহিম রেজা নূর। হিন্দু বৌদ্ধ ক্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি নবেন্দ্র বিকাশ দত্ত। সেক্টও কমান্ডার ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ৭১’ এর সভাপতি রাশেদ আহমেদ।

সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, সরকার ভোটের রাজনীতির জন্য এ সকল হামলার বিচার করে না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ধর্মান্ধরা যথেচ্ছা ব্যাবহার করছে। আমাদেরকেও অনলাইনে এ সকল সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দার ঝড় বইয়ে দিতে হবে। তাহলে সরকার ভোটের কারনেই এ সকল সংখ্যালগু হামলার বিচার করেতে বাধ্য হবে।

কলামিস্ট শুভ্রত বিশ্বাস ক্ষোবের সঙ্গে বলেন, আমি কার কাছে বিচার চাইবো। সরকারের কাছে? তারা তো এর সব কিছু জেনেশুনেও নির্বিকার। জনগন? বাংলাদেশে তো অসংখ্য সংগঠন কই কাউকে তো তেমন এগিয়ে আসতে দেখলাম না যেমন তারা এগিয়েছে রোহিঙ্গাদের জন্য? 

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক মুজাহিদ আনসারি, মাহফুজুর রহমান, রতন তালুকদার, আবু তাহের, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি নিউ ইয়র্কে চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক স্বীকৃতি বড়ুয়া, একটিভিস্ট গোপাল স্যান্নাল, রবীন্দ্র সরকার, ডা. প্রভাষ দাশ, মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল বারী, সুশীল সাহা, শুভ রায়, নূরে আলম জিকো, গোপন সাহা, কৃষাণ রায়, পল্লব সরকার, ভবতোষ সাহা এবং শিবলী সাদেক।


মন্তব্য