kalerkantho


জাতিসংঘে শান্তির জন্যে মানবাধিকার শীর্ষক সভা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০২:০১



জাতিসংঘে শান্তির জন্যে মানবাধিকার শীর্ষক সভা

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি: যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ‘কমিশন অন দ্যা স্টাটাস অব উইমেন (সিএসডব্লিউ)’- এর ৬১তম অধিবেশনের সাইডলাইনে ‘নারী এবং স্থায়ী শান্তি: শান্তির জন্যে মানবাধিকার অপরিহার্য’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

স্থানীয় সময় গত সোমবার বাংলাদেশ মিশন আয়োজিত এ আলোচনায় জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন অংশ নেন। জাতিসংঘের সাবেক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল রাষ্ট্রদূত আনোয়ারুল করীম চৌধুরী এই সাইড ইভেন্টটির মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন।

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে এবং নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে মানবাধিকার ও টেকসই শান্তি নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ আজ নারী উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বের বুকে রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। এরই স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী অর্জন করেছেন সাম্প্রতিক সময়ের ইউএন উইমেন এর ‘প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফোরামের ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ অ্যাওয়ার্ড’সহ বেশকিছু আন্তর্জাতিক পুরস্কার। ” 

মানবাধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের ভূমিকার কথা তুলে ধরে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণার মূলনীতি ও ধারাসমূহকে ধারণ করেই প্রণয়ন করা হয়েছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান। বাংলাদেশ জাতিসংঘের মানবাধিকার রক্ষা কাউন্সিলের সদস্য হিসেবে জেনেভায় মানবাধিকার রক্ষা কাউন্সিল কর্তৃক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে শান্তি নিশ্চিত করার আলোচনায় শুরু থেকেই কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ শান্তির সংস্কৃতি ও অসহিংসতা বিকাশের অন্যতম প্রবক্তা।

নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে জাতিসংঘের বিভিন্ন কার্যক্রমে বাংলাদেশের সক্রিয় ভূমিকার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ সবসময়ই জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। হাইতি ও কঙ্গোতে বাংলাদেশই প্রথম নারী পুলিশ কন্টিনজেন্ট পাঠায়।

জাতিসংঘ মিশনে কর্মরত নারীর সুরক্ষা ও যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ বিষয়েও বাংলাদেশ সুনির্দিষ্টভাবে ভূমিকা রেখেছে।

এছাড়া ২০১৬ সালে জাতিসংঘ পিস্ বিল্ডিং কমিশন গৃহীত ‘জেন্ডার স্ট্রাটেজি’ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে সফলতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত মোমেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী প্রতিষ্ঠান ‘ইন্টারন্যাশনাল পিস ব্যুরো’র জাতিসংঘের প্রতিনিধি কোরা উইইস্, ‘স্প্যানিস সোসাইটি ফর ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস্ ল’র সভাপতি কারলোস ভিল্যান ডোরান, জাতিসংঘের ‘শিশু অধিকার রক্ষা কমিটি’র সদস্য মিকিকো ওতানি এবং ‘উইমেন ইউএন রিপোর্ট নেটওয়ার্ক’-এর সমন্বয়কারী লোইস্ এ. হারম্যান।

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে গত সোমবার সকালে শুরু হওয়া ‘সিএসডব্লিউ’র এই ৬১তম অধিবেশনের উদ্বোধন করেন মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ। আগামী ২৪ মার্চ পর্যন্ত এ সভার কার্যক্রম চলবে।


মন্তব্য