kalerkantho


দেশ চালাতে ট্রাম্পের দরকার শেখ হাসিনার পরামর্শ

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ০২:২০



দেশ চালাতে ট্রাম্পের দরকার শেখ হাসিনার পরামর্শ

সঠিকভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে পরিচালনা করতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের উচিত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পরামর্শ নেওয়া। গত রবিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্ক সিটির কুইন্সের উডহ্যাভেন হাউজে ‘সেন্ট প্যাট্রিক ডে’ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে কংগ্রেসে বাংলাদেশ ককাসের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান কংগ্রেসম্যান যোসেফ ক্রাউলির সঙ্গে আলাপ প্রসঙ্গে এমন একটি মন্তব্য করেছেন প্রবাসী বাংলাদেশি বাংলাদেশি আমেরিকান ডেমক্র্যাটিক লীগের প্রেসিডেন্ট খোরশেদ খন্দকার।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাত মুসলিম দেশের মুসলমানদের ভ্রমণ নিষিদ্ধকরন নির্বাহী আদেশ ও নানা ধরনের বিরুপ মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বব্যাপী যে ধরণের অস্থিরতা আর উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছিল তাতে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও প্রশ্নবানে জর্জরিত হয়েছেন বিভিন্ন সময়ে। । ইউএস সিনেটর এবং কংগ্রেসম্যানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিগণের একটি অনুষ্ঠানে দেশটির ডেমক্র্যাটিক পার্টির নেতা সিনেটর চাক শ্যুমারের শুভেচ্ছা বক্তব্যেও সেই উদ্বেগের প্রকাশ ঘটে।  

এরই পরিপ্রেক্ষিতে এই অনুষ্ঠানের হোস্ট মার্কিন কংগ্রেসে বাংলাদেশ ককাসের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান কংগ্রেসম্যান যোসেফ ক্রাউলির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বাংলাদেশি আমেরিকান ডেমক্র্যাটিক লীগের প্রেসিডেন্ট খোরশেদ খন্দকার বলেন,  ‘কীভাবে দেশ চালাতে হয় সে ব্যাপারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরামর্শ নেয়া উচিত। 'এমন প্রসঙ্গে কিছুটা নিরব থেকে একটু হেসে প্রতিনিধি পরিষদে ডেমক্র্যাটিক ককাসের চেয়ারম্যান কংগ্রেসম্যান ক্রাউলি বলেন, ‘হয়তো বা, আমিও তেমনটি ভাবছি। ' ‘রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে জামায়াত-বিএনপি বাংলাদেশে তাণ্ডব শুরু করেছিল, নাশকতা কর্মকাণ্ডে গোটা জনজীবনকে জিম্মি করার ষড়যন্ত্র করেছিল। সেই অবস্থার অবসান ঘটিয়ে গোটা জনগোষ্ঠীকে উন্নয়নের পথে একীভূত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ট্রাম্পকেও সে পথেই হাঁটা উচিত’ বলে উল্লেখ করেন খোরশেদ খন্দকার।

এ সময় খোরশেদ খন্দকার ক্রাউলির প্রতি অনুরোধ জানান, জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালে হোয়াইট হাউজের সাথে আলোচনার জন্য।

বাংলাদেশের শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষার স্বার্থেই জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালের বিকল্প নেই বলেও উল্লেখ করেন ডেমক্র্যাটিক পার্টির এই সংগঠক। বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই বললেই চলে, তাই জিএসপি সুবিধা ফিরিয়ে দেয়া হলে সরকারের পক্ষে শ্রমিক স্বার্থে আরও অনেক কিছুই করা সম্ভব। এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করেননি ক্রাউলি।  

৩ ঘণ্টার এ অনুষ্ঠানে গানের ফাঁকে সিনেটর, কংগ্রেসম্যান, স্টেট এ্যাসেম্বলিম্যান, সিটি কাউন্সিলম্যানরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ট্রাম্প প্রশাসনের বিভিন্ন পদক্ষেপের কঠোর সমালোচনা করেন এবং এর দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়ার জন্য সামনের বছরের নভেম্বরে মধ্যবর্তী নির্বাচনে ডেমক্র্যাটদের বিপুল জয় দেয়ার অনুরোধ রাখেন।


মন্তব্য