kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ওয়াশিংটনে বড় দুর্ঘটনা থেকে বাঁচলেন ‘ফোবানা’র হাজারো দর্শক

সাবেদ সাথী, ওয়াশিংটন থেকে ফিরে   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০২:৩৪



ওয়াশিংটনে বড় দুর্ঘটনা থেকে বাঁচলেন ‘ফোবানা’র হাজারো দর্শক

ফোবানা সম্মেলনের শেষ ২ দিনে নিরাপত্তাকর্মিদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আগুন প্রস্থান পথ (ফায়ার এক্সিট) দিয়ে এভাবেই ভেতরে দর্শক ঢোকানো হয়। ছবি: সাবেদ সাথী/ কালের কন্ঠ

বড় ধরনের দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে গেলেন ফোবানা সম্মেলনে আসা হাজারো দর্শক। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত তিন দিনের ফোবানা সম্মেলনে নজিরবিহীন অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মই ঘটেনি, নিরাপত্তাকর্মিদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আগুন প্রস্থান পথ (ফায়ার এক্সিট) দিয়ে অবাধে ঢোকানো হয়েছিল দর্শকশ্রোতাদের।

যা ছিল অত্যন্ত বিপদজনক। অগ্নি বিপদাশঙ্কার শব্দযন্ত্র বেজে উঠলে জরুরি ভিত্তিতে দর্শকদের ভিড় ঠেলে বাইরে যেতে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেত এবং পুলিশ বা দমকল বাহিনীর সদস্যরা এসে পুরো অনুষ্ঠনটি বন্ধ করে দিত।

ওয়াশিংটনের পার্শ্ববর্তী ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের আর্লিংটন শেরাটন পেন্টাগন সিটি হোটেলে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শুরু হওয়া এ সম্মেলনের মিলনায়তনের ধারন ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত দর্শক সমাগম হওয়ায় শেষ দুইদিনে দর্শকদের বাইরে যাওয়া আসা বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু অগ্নি বিপদাশঙ্কা তোয়াক্কা না করে ফোবানা সংশ্লিষ্ট কতিপয় ব্যক্তির সহযোগিতায় পেছনের আগুন প্রস্থান পথ (ফায়ার এক্সিট) দিয়ে অবাধে দর্শকদের ভেতরে প্রবেশ করিয়েছেন। যা ছিল অত্যন্ত বিপদজনক। অগ্নি বিপদাশঙ্কার শব্দযন্ত্র বেজে উঠলে জরুরি ভিত্তিতে দর্শকদের ভিড় ঠেলে বাইরে যেতে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটত বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছাড়া অগ্নি বিপদাশঙ্কার শব্দযন্ত্র বেজে উঠলে পুলিশ বা দমকল বাহিনীর সদস্যরা এসে পুরো অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দিত বলে অনেকেই মন্তব্য করেছেন।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন (বাগডিসি)-এর আয়োজনে এবারে ৩০ তম ফেডারেশন অব বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশনস ইন নর্থ আমেরিকার (ফোবানা) সম্মেলনের শেষ ২ দিনে নিরাপত্তাকর্মিদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছিল ২ শতাধিক শিশু-কিশোরসহ সহস্রাধিক দর্শকশ্রোতা। মিলনায়তনের ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত দর্শক সমাগম হওয়ায় শনি ও রবিবার মিলনায়তনের ভেতরের দর্শকদের জন্য শৌচাগারে যাওয়া আসা বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু আগুন প্রস্থান পথ (ফায়ার এক্সিট) দিয়ে টু-পাইসের বিনিময়ে ফোবানা সংশ্লিষ্ট কতিপয় ব্যক্তিরা টিকেটবিহীন দর্শকদের ভেতরে প্রবেশ করিয়েছে। পেছনের এ দরজাটি ছিল শিল্পীদের বসার স্থান বা গ্রিনরুমের। সেখানেই সার্বক্ষনিকভাবে উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সাংস্কৃতিক চেয়ারপার্সন। তাঁরা এ দৃশ্য দেখেও না দেখার ভান করেছেন। বিষয়টি নিরাপত্তাকর্মিদের দায়িত্বে নিয়োজিত সিকিউরিটি চেয়ারপার্সনকে অভিযোগ করেছিলেন জনৈক দর্শক। তিনি বিষয়টিকে তেমন গুরুত্ব দেননি বলে অভিযোগ করেন ঐ দর্শক। নিরাপত্তাকর্মিদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আগুন প্রস্থান পথ (ফায়ার এক্সিট) দিয়ে এভাবে অবাধে দর্শক ঢোকানোর ঘটনা এর আগে কোন ফোবানায় ঘটেনি।


মন্তব্য