kalerkantho

ঠাকুরগাঁওয়ে ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

২৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঠাকুরগাঁওয়ের একটি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় আতিকা ইসলাম (৯) নামে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ অনুযায়ী, অ্যানেসথেসিয়ার (অজ্ঞান) জন্য অতিরিক্ত ওষুধ প্রয়োগ করার কারণেই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পর থেকে সংশ্লিষ্ট দুই চিকিৎসক পলাতক রয়েছেন।

ঘটনাটি ঘটে গত শনিবার রাতে, ঠাকুরগাঁও শহরের ‘এলিজা নার্সিং হোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে’। আতিকা ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের গোয়ালকারী গ্রামের আতিকুর রহমানের মেয়ে। সে ডাঙ্গীবাজারে বিপ্লব মেমোরিয়াল স্কুলে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ত।

আতিকুর রহমান অভিযোগ করেন, ‘কিছুদিন আগে ইজিবাইকের ধাক্কায় আতিকার পা ভেঙে যায়। ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ১৩ দিন চিকিৎসার পর তাকে বাড়ি নেওয়া হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে পায়ের অস্ত্রোপচারের জন্য তাকে গত বৃহস্পতিবার নেওয়া হয় এলিজা নার্সিং হোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। গত শনিবার রাতে আতিকাকে অপারেশন থিয়েটারে নেন ডা. আবু বক্কর সিদ্দিক দিপু ও অ্যানেসথেসিয়ার চিকিৎসক ডা. মনির। প্রায় তিন ঘণ্টা পর আমাদের কিছু না জানিয়েই দুই চিকিৎসক পালিয়ে যান। পরে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ আতিকাকে মৃত অবস্থায় হস্তান্তর করে।’

আতিকুর রহমানের অভিযোগ, ‘অ্যানেসথেসিয়ার (অজ্ঞান) জন্য অতিরিক্ত ওষুধ প্রয়োগ করায় আতিকার মৃত্যু হয়েছে। কারণ অস্ত্রোপচারের জন্য মেয়েকে অজ্ঞান করলেও চিকিৎসকরা তার আর জ্ঞান ফেরাতে পারেননি।’

এ ব্যাপারে কথা বলতে ওই ক্লিনিকে গিয়ে মালিক দারাজ আলীকে পাওয়া যায়নি। দুই চিকিৎসকের মোবাইল ফোনও বন্ধ।

 

মন্তব্য