kalerkantho

২৫শে মার্চ কালরাত

আজ রাত ৯টা থেকে ১ মিনিট প্রতীকী ব্ল্যাক আউট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চারদিকের স্তব্ধতা ভেঙেছিল শত শত মানুষের আর্তনাদে। কারণ গর্জে উঠেছিল দখলদার পাকিস্তানি সেনাদের অত্যাধুনিক রাইফেল, কামান, মেশিনগান, মর্টার। স্থানে স্থানে চিৎকারের পর আবার নেমেছিল স্তব্ধতা। নিরীহ সাধারণের বুকে, শরীরের বিভিন্ন অংশে চালানো হলো গুলি। বেয়নেটের খোঁচায় প্রাণ গেল হাজারো মানুষের। আজ সেই ২৫ মার্চ। বিশ্বের ইতিহাসে গণহত্যার সূচনাকারী এবং একই সঙ্গে নিষ্ঠুরতার বিরুদ্ধে লড়ে বাঙালির জয়ের পতাকা ওড়ানোর মহাকাব্য রচনা শুরুর দিন আজ। ১৯৭১ সালের এই দিনে রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহর ঢাকায় সর্বসাধারণের অজান্তে নেমে এসেছিল নৃশংসতা, নিষ্ঠুরতা।

শোকের স্মৃতি বেয়ে কান্নার এবং সেই সঙ্গে শক্তি জোগানের লক্ষ্যে আজ পালিত হবে জাতীয় গণহত্যা দিবস। দিবসটি উপলক্ষে আজ রাত ৯টা থেকে ৯টা ১ মিনিট পর্যন্ত এক মিনিটের জন্য জরুরি স্থাপনা ও চলমান যানবাহন ব্যতীত সারা দেশে প্রতীকী ব্ল্যাকআউট কর্মসূচি পালন করা হবে।

জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আজ রাত ৯টা থেকে ১ মিনিট সারা দেশে প্রতীকী ব্ল্যাক আউট কর্মসূচি পালন করা হবে। স্কুল, কলেজ, মাদরাসাসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠে ২৫ মার্চ গণহত্যার স্মৃতিচারণা ও আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছে। নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বাদ জোহর দেশের সব মসজিদে বিশেষ মোনাজাত এবং অন্যান্য উপাসনালয়ে সুবিধাজনক সময়ে প্রার্থনা করা হবে। কেন্দ্রীয়ভাবে এবং সব জেলা ও উপজেলায় এ দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভার আয়োজন করাসহ গণহত্যা ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গীতিনাট্য এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

দিবসটি এবার তৃতীয়বারের মতো জাতীয় ‘গণহত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করা হচ্ছে। পুরো দেশবাসী ভেতরে লুকানো বেদনা ও শোকে শহীদদের স্মৃতির প্রতি অর্ঘ্য নিবেদন করবে।

২৫ মার্চ কালরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা বাণী দিয়েছেন।

 

 

মন্তব্য