kalerkantho

বলিরেখায় ঘরোয়া টোটকা

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বলিরেখায় ঘরোয়া টোটকা

লেবু ও দই : এ দুটি জিনিস বলিরেখা দূর করতে ব্লিচিং হিসেবে কাজ করে। লেবুর রসের সাইট্রিক এসিড, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ইত্যাদি রয়েছে। ত্বকের যেকোনো কালো দাগ দূর করতে লেবু ও দইয়ের মিশ্রণে ভরসা রাখতে পারেন অনায়াসে।

ক্যাস্টর ওয়েল : বয়সের দাগ বা রেখা সৌন্দর্যহানি ঘটায়। মুখের এসব অংশে ক্যাস্টর ওয়েল মাখতে হবে দিনে দুইবার। কয়েক মাস পরই ফল মিলবে। বলিরেখাগুলো অনেক ভালো অবস্থায় ফিরে যাবে।

পেঁয়াজ ও অ্যাপল সিডার ভিনেগার : বয়সের কারণে মুখে পড়া দাগ বা রেখা সারাইয়ে পেঁয়াজ অনন্য। সামান্য পেঁয়াজ বেঁটে নিন। এবার এর রসটা আলাদা করে ফেলুন। এর জন্যে পাতলা সুতির কাপড় ব্যবহার করতে পারেন। এতে মেশান সামান্য অ্যাপল সিডার ভিনেগার। এই মিশ্রণটি মুখে লাগান তুলো দিয়ে। সময়ের সঙ্গে উপকার মিলবে।

অ্যালোভেরা : রূপচর্চায় অ্যালোভেরা পাতার জেল অনেক পুরনো আমল থেকে ব্যবহৃত হচ্ছে। ত্বকের যেকোনো সমস্যায় অ্যালোভেরা জাদুর মতো কাজ করবে। যেসব স্থানে বলিরেখা দেখা দিয়েছে বা কালো দাগ পড়েছে, সেসব স্থানে এই পাতার জেল ঘষতে হবে।

অলিভ ওয়েল ও ভিনেগার : এ দুটি জিনিসের মিশ্রণ বলিরেখা অনেকটা দূর করে দিতে পারে। অলিভ ওয়েল এবং ভিনেগারের মিশ্রণ মুখে মেখে আধাঘণ্টা পর্যন্ত রেখে দিতে হবে। এরপর ভালোমতো ধুয়ে ফেলুন।

পেঁপে : এই সুমিষ্ট ফলের মাংসল অংশ মুখের দাগ এবং বলিরেখা দূর করার জন্যে খুবই কাজের। ভালো ফল পেতে প্রতিদিনই ব্যবহার করতে হবে। হালকাভাবে ত্বকে মাখতে থাকবেন। মিনিট পনেরো রাখার পর ধুয়ে ফেলুন।

রসুন : এই অতি উপকারী রসুন বয়স্কালের দাগ দূর করে। ভাঁজও সারাই করতে ওস্তাদ। বিশেষজ্ঞরা এ কাজে রসুনের পেস্ট মুখে লাগাতে বলেন।

শসা : এই সবজি রূপচর্চায় অনন্য। শসা বেঁটে পেস্ট করে কিংবা এর রস মুখে দিলে বয়সের অস্বস্তিকর দাগ ধীরে ধীরে চলে যাবে।

গোলাপ জল ও চন্দন গুঁড়া : সবচেয়ে ভালো হয় যদি গোলাপের পাপড়ি ছেঁচে রস বের করে নিতে পারেন। এরপর তাতে চন্দন কাঠের গুঁড়া মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মুখে মেখে রেখে দিন ১৫ মিনিটের মতো। এরপর ধুয়ে ফেলুন।

অর্গানিক ফ্যাক্টস অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

 

মন্তব্য