kalerkantho

শিক্ষকের পিটুনিতে ছাত্রী হাসপাতালে

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যশোরের চৌগাছায় শিক্ষকের পিটুনিতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রী মারাত্মক আহত হয়েছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে গতকাল শনিবার সকালে চৌগাছা সরকারি শাহাদৎ পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।

আহত শিক্ষার্থী সাদিয়া পারভীন শ্রাবণী চৌগাছা পৌর এলাকার নিরিবিলিপাড়ার আব্দুস সালামের একমাত্র মেয়ে। অভিযুক্ত রবিউল ইসলাম বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক।

বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা জানায়, প্রতিদিনের মতোই গতকাল শ্রাবণী বিদ্যালয়ে আসে। সকাল ৮টার দিকে সবার সঙ্গে পিটিতে (শরীরচর্চা) অংশ নেয়। এ সময় শ্রাবণী কিছুটা লাইনচ্যুত হয়ে যায়। এতে ক্রীড়া শিক্ষক রবিউল ইসলাম শ্রাবণীক বাঁশের কঞ্চি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। একপর্যায় শ্রাবণী জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীরা তাকে বিদ্যালয়ের কমনরুমে নিয়ে মাথায় পানি দিয়ে সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করে। কিন্তু অবস্থা ক্রমেই খারাপের দিকে যাওয়ায় তাকে দ্রুত চৌগাছা হাসপাতালে নিয়ে যায় আয়া ও সহপাঠীরা।

হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সেলিনা বেগম জানান, শ্রাবণীর ডান পাশের কিডনির ওপর বেশ কয়েকটি বেতের আঘাত রয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে জানা যাবে তার আঘাত কতটা গুরুতর। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আহত শ্রাবণী বারবার জ্ঞান হারাচ্ছিল। যখনই তার জ্ঞান ফেরে তখনই তাকে ব্যথায় ছটফট করতে দেখা যায়।

এদিকে খবর পেয়ে শ্রাবণীর আত্মীয়-স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে যায়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ অন্য শিক্ষকরা এবং থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আকিকুল ইসলামও হাসপাতালে যান এবং খোঁজখবর নেন। শিক্ষকের হাতে ছাত্রী আহত হওয়ার খবরে অভিভাবক মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

প্রধান শিক্ষক আজিজুর রহমান বলেন, ‘সে (শ্রাবণী) আগে সুস্থ হয়ে উঠুক। তারপর কী করণীয় সবাই বসে সিদ্ধান্ত নেব।’

শ্রাবণীর বাবা আব্দুস সালাম বলেন, ‘একজন শিক্ষক কখনো এমন প্রহর করতে পারেন না। আমার মনে হয় না তিনি শিক্ষক। এর সুষুম বিচার হওয়া জরুরি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মারুফুল আলম বলেন, ‘আমি খবর শুনেছি। একজন শিক্ষক তাঁর শিক্ষার্থীদের সাথে এমন আচরণ করতে পারেন না। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

 

মন্তব্য