kalerkantho

ভৈরবে তিন মাসে থানা থেকেই তিন মোটরসাইকেল চুরি

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানা থেকে গত তিন মাসে পুলিশের তিনটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটেছে। পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন জায়গা থেকেও মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটছে। মোটরসাইকেল চুরির এসব ঘটনায় সম্প্রতি থানায় এক ডজনের বেশি অভিযোগ জমা পড়লেও এখন পর্যন্ত চোরচক্রের কোনো সদস্যকেই শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

জানা যায়, গত বুধবার রাতে ভৈরব থানার এসআই সাইফুল ইসলাম শ্যামলের মোটরসাইকেলটি চুরি হয়ে যায়। মাত্র দুই দিন আগে প্রায় পৌনে দুই লাখ টাকা দিয়ে মোটরবাইকটি কেনেন সাইফুল। এর আগে গত বছরের শেষদিকে থানা চত্বর থেকে তাঁর আরেকটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। গত জানুয়ারিতে থানার ভেতর থেকে ১৫০ সিসির একটি পালসার মোটরসাইকেল চুরি হয়। এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে থানার গ্যারেজ থেকে এসআই অভিজিৎ চৌধুরীর ১৫০ সিসির ইয়ামাহা মোটরসাইকেলটি চুরি হয়।

এসআই অভিজিৎ চৌধুরী আক্ষেপ করে বলেন, ‘পুলিশে চাকরি করেও চোরদের কৌশলের কাছে আমাদের অসহায় হয়ে থাকতে হচ্ছে। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।’

এ ছাড়া ভৈরব উপজেলা পরিষদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পৌরসভা চত্বর, পৌর নিউ মার্কেট, পৌর এলাকার কমলপুর, আবেদীন হাসপাতালসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে হরহামেশা মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটছে। এসব চুরির ঘটনায় গত কয়েক মাসে ভৈরব থানায় ডজনখানেক অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভোগীরা। কিন্তু পুলিশ এসব চুরি ঠেকাতে পারছে না।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার ওসি (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, সিসি টিভির ফুটেজ দেখে চোর শনাক্ত করার পাশাপাশি এসব ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে, সে ব্যাপারে কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য