kalerkantho

বাস কাউন্টারে আটকে রেখে দুই দিন ধরে ধর্ষণ!

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেপ্তার

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি   

২২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায় বাসের একটি কাউন্টারে এক নারী সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ অনুযায়ী, বুড়িমারী স্থলবন্দরের জিরো পয়েন্ট এলাকায় যশোদা পরিবহনের কাউন্টারের একটি কক্ষে ওই নারীকে দুই দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই কাউন্টারের ম্যানেজার ও বুড়িমারী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলামকে (৩৫) পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ভুক্তভোগী নারীকে সেখান থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। ওই নারীর বাড়ি শেরপুরের নকলা উপজেলায়।

ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ জানায়, তিন দিন আগে ভারত যাওয়ার উদ্দেশে ওই নারী বুড়িমারী স্থলবন্দরের জিরো পয়েন্টে যান। ভারতে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে একটি চক্র তাঁকে সেখানে নিয়ে যায়। এরপর কাগজপত্র প্রস্তুত করে দেওয়ার কথা বলে ওই নারীকে যশোদা বাস কাউন্টারের একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে। এরপর তাঁকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে রেজাউল ইসলাম, নুরুন্নবী (২৮), আনছারুল ইসলাম ওরফে ভোম্বল (৩০) ও নজু মিয়া। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে খবর পেয়ে পাটগ্রাম থানা পুুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ‘ধর্ষিত’ নারীকে উদ্ধার করে। পাশাপাশি ধর্ষণের অভিযোগে বুড়িমারী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে।

রেজাউল বুড়িমারীর ২ নম্বর ওয়ার্ডের মংলীবাড়ি এলাকার বাসিন্দা। নুরুন্নবীর বাড়ি শ্রীরামপুর ইউনিয়নের বুড়িরবাড়ী গ্রামে। আনছারুল ইসলামের গ্রামের নাম বটতলী। আর নজু মিয়ার বাড়ি হাতীবান্ধা উপজেলায়।

পাটগ্রাম উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নাজমুল হুদা রাসেল বলেন, ‘অভিযোগ সত্য হলে রেজাউল ইসলামের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ 

পাটগ্রাম থানার ওসি মো. মনসুর আলী সরকার জানান, ওই নারী বাদী হয়ে রেজাউলসহ চারজনের নামে মামলা করেছেন। ভুক্তভোগীকে প্রয়োজনীয় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আদমদীঘিতে একজন গ্রেপ্তার

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা সদরের সুদিন গ্রামে এক শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে রবিউল ইসলাম (২১) নামের এক তরুণকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের উদ্ধৃতি দিয়ে কালের কণ্ঠ’র আদমদীঘি প্রতিনিধি জানান, গত মঙ্গলবার সকালে ওই শিশুকে বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে রবিউল। কিন্তু শিশুটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে সে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।

মন্তব্য