kalerkantho

পাবলিক পরীক্ষার সময় ফ্রিল্যান্স কোচিং সেন্টার খোলা রাখার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাবলিক পরীক্ষার সময় ফ্রিল্যান্স কোচিং সেন্টারগুলো খোলা রাখার দাবি জানিয়েছেন অ্যাসোসিয়েশন অব শ্যাডো এডুকেশন বাংলাদেশের নেতারা। প্রশ্ন ফাঁসের শিকড় অনুসন্ধানের সঙ্গে সঙ্গে কোচিং সেন্টারগুলোকে নির্দিষ্ট নীতিমালার আওতায় আনতে সরকারের প্রতি আহ্বানও জানান। গতকাল বুধবার রাজধানীর ফার্মগেটে সংগঠনটির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়।

বক্তারা বলেন, ২০১৭ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে ১৯০ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। তাদের কেউই ফ্রিল্যান্স কোচিং সেন্টারের সঙ্গে জড়িত নয়। এ ছাড়া পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কোনো কাজেই কোচিং সেন্টারগুলো জড়িত নয়। তাহলে কেন পাবলিক পরীক্ষার সময় কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখা হয়?

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইমাদুল হক (ই. হক স্যার)। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান সোহাগ, শামসেয়ারা খান ডলি ও মো. কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুব আরেফিন, আকমল হোসাইন, পলাশ সরকার প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে ইমাদুল হক বলেন, বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার সময় অধিকাংশ স্কুল-কলেজের পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকে। কোচিংগুলোও বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে পড়ালেখা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় ছাত্রছাত্রীরা।

মন্তব্য