kalerkantho

বাঁশবাগানের নবজাতক উঠল পুষ্পর কোলে

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাঁশবাগান থেকে বাচ্চার কান্না শুনে চমকে উঠলেন পুষ্প বেগম। এ রকম নির্জন জঙ্গলে কারো থাকার কথা নয়। দুরু দুরু পায়ে এগিয়ে যান তিনি। সেখানে গিয়ে দেখেন কাপড়ে মোড়ানো এক নবজাতক। মাতৃস্নেহে তুলে নেন কোলে। ছেলে হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে নাম রাখলেন আল-আমিন। অনন্য মানবিকতার ঘটনাটি ঘটেছে মানিকগঞ্জের কাগজিনগর গ্রামে। পাশের গ্রাম দিঘীতে পুষ্প বেগমের বাড়ি।

প্রতিদিন ভোরে পুষ্প বেগম হাঁটতে বের হন। গত রবিবারও তিনি হাঁটতে হাঁটতে কাগজিনগরের ওই বাঁশবাগানের কাছাকাছি এসে পড়েন। আর সেখানেই তিনি পেয়ে গেলেন ছেলেকে। দুই মেয়ে থাকলেও এত দিন একটি ছেলের জন্য তাঁর আক্ষেপ ছিল।

পুষ্প বেগমের স্বামী নিজামউদ্দিন সৌদিপ্রবাসী। বড় মেয়ে মুক্তার (২০) বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট মেয়ে স্বপ্না (১৫) মাধ্যমিকের ছাত্রী। ছেলে পেয়ে আবেগে আপ্লুুত পুষ্প বেগম। তিনি বললেন, ভিডিও কলে হঠাৎ পাওয়া ছেলেকে দেখে স্বামীও খুশি। পুষ্প বলেন, ‘একটা ছেলের জন্য আমাদের দুজনেরই আশা ছিল। মেয়েরাও চাইত তাদের একটা ভাই হোক। এভাবে যে আমাদের সবার আশা পূরণ হবে তা কোনো দিন ভাবতেও পারিনি।’ তিনি বলেন, ‘কোনোদিন হয়তো আমরা জানতেও পারব না এই শিশুর জন্মদাতা মা-বাবা কে। কিন্তু এখন থেকে আমিই হবো ওর মা।’

ভাই পেয়ে স্বপ্নাও খুশি। বলল, ‘ভাই বলে কাউকে ডাকতে পারতাম না। অন্যরা যখন ভাইয়ের কথা বলত তখন মনে হতো আমার যদি একটা ভাই থাকত। এখন ভাই পেয়েছি। খুব আনন্দ হবে। ভাইকে লেখাপড়া শিখিয়ে বড় করার কথা বলল সে।’

মন্তব্য