kalerkantho

রাকসু নিয়ে আলোচনা

প্রশাসন অনুমতি না দেওয়ায় সভা স্থগিত, ক্ষোভ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অনুমতি না মেলায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (রাকসু) নির্বাচন নিয়ে আলোচনাসভা করতে পারেনি রাকসু আন্দোলন মঞ্চ। অনুমতি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে আবেদন এবং এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েও লাভ হয়নি। গতকাল সোমবার তাই আলোচনাসভার পরিবর্তে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

রাকসু আন্দোলন মঞ্চের আহ্বায়ক আব্দুল মজিদ অন্তর গতকাল সংবাদ সম্মেলনে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমাদের সভায় বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বনামধন্য শিক্ষকরা উপস্থিত থাকার কথা ছিল। তা জেনেও প্রশাসন ন্যূনতম সৌজন্যবোধ ও সহযোগিতা না করে উল্টো স্বৈরাচারী ও অগণতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করে আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করতে বাধ্য করেছে।’

লিখিত বক্তব্যে আব্দুল মজিদ অন্তর বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে আলোচনাসভা করার জন্য গত ৩ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের (টিএসসিসি) পরিচালক বরাবর লিখিত আবেদন করেছিলাম। পরে ‘অনুমতি দেওয়া হলো’ মর্মে একটি চিঠি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে পাঠান টিএসসিসি পরিচালক। আমরা অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করলে টিএসসিসির এক কর্মচারী ফোন করে জানান, রাকসু আন্দোলন মঞ্চের অনুমতি বাতিল করা হয়েছে।’ কেন বাতিল করা হয়েছে জানতে চাইলে ওই কর্মচারী বলেন, ‘উপাচার্য স্যারের নিষেধ আছে। আপনারা প্রক্টর স্যারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।”

আন্দোলন মঞ্চের আহ্বায়ক বলেন, “টিএসসিসিতে অনুমতি বাতিল করার পর অন্য জায়গায় কর্মসূচি পালনের অনুমতি চেয়ে প্রক্টর বরাবর আবার আবেদন জমা দিতে যাই আমরা। ওই সময় প্রক্টর দপ্তরে উপস্থিত ছিলেন না। দপ্তরের এক কর্মকর্তার কাছে জমা দিতে চাইলে ‘জমা নেওয়া নিষেধ আছে’ জানিয়ে তিনিও আবেদনপত্র জমা নেননি। এরপর ছাত্র উপদেষ্টাকে বিষয়টি জানালে তিনিও বলেন যে ভিসি স্যারের নিষেধ আছে।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘প্রক্টর দপ্তরে যে কেউই তাদের দাবি-দাওয়ার ব্যাপারে কাগজপত্র জমা দিতে পারে। সে ক্ষেত্রে কোনো বিধিনিষেধ নেই। তারা সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ করেছে।’

মন্তব্য