kalerkantho

পাকুন্দিয়ায় ভেটেরিনারি সার্জন নেই এক বছর

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার প্রাণিসম্পদ দপ্তরে দীর্ঘদিন ধরে ভেটেরিনারি সার্জনসহ তিনজন কর্মকর্তার পদ শূন্য রয়েছে। গবাদি পশুদের স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা একা। ফলে কাঙ্ক্ষিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকাবাসী। বিঘ্নিত হচ্ছে দৈনন্দিন অফিশিয়াল কার্যক্রমসহ মাঠপর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবা।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ কার্যালয়ে একজন ভেটেরিনারি সার্জন (ভিএস), একজন লাইভস্টক অ্যাসিস্ট্যান্ট (ইউএলএ) ও একজন ড্রেসারের পদ শূন্য। ভেটেরিনারি সার্জন ডা. আসমা আল হোসনেয়ারা এক বছর আগে অন্যত্র বদলি হওয়ায় পদটি শূন্য রয়েছে। লাইভস্টক অ্যাসিস্ট্যান্ট ও ড্রেসারের পদ বহু বছর ধরে শূন্য।

উপজেলার শৈলজানী গ্রামের কৃষক মনসুর আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে একজন ডাক্তার দিয়ে চলছে এ হাসপাতাল। চিকিৎসার জন্য গবাদি পশু নিয়ে এলে অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয়। হাসপাতালে অনেক ভিড় থাকে। এ হাসপাতালে আরেকজন ডাক্তারের খুবই প্রয়োজন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. স্বপন চন্দ্র বলেন, ‘প্রতিদিন প্রায় ১৫০-২০০ কৃষক বিভিন্ন গবাদি পশু নিয়ে আসে চিকিৎসাসেবা নিতে। আমাকে একাই সব সামলাতে হচ্ছে।’

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আবদুল মান্নান বলেন, ‘শূন্য পদগুলো পূরণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে তিনবার লিখিতভাবে জানিয়েছি। তবে আশা করছি, দুই-তিন মাসের মধ্যেই ভেটেরিনারি সার্জন নিয়োগ দেওয়া হবে।’

 

মন্তব্য