kalerkantho

মশা নিয়ন্ত্রণে কঠোর হচ্ছে ডিএনসিসি

মঙ্গলবার থেকে বিশেষ ক্রাশ কর্মসূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মঙ্গলবার থেকে বিশেষ ক্রাশ কর্মসূচি

মশক নিয়ন্ত্রণ ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম সম্পর্কিত মতবিনিময়সভায় গতকাল বক্তব্য দেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় মশা নিয়ন্ত্রণে কোনো ধরনের গড়িমসি হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সংস্থার নবনির্বাচিত মেয়র আতিকুল ইসলাম। আগামী মঙ্গলবার থেকে বিশেষ ক্রাশ কর্মসূচি শুরু করতে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। মশা নিয়ন্ত্রণে আসার আগ পর্যন্ত মশককর্মীদের কাজ মাঠে থেকে তদারকি করার ঘোষণা দিয়েছেন মেয়র।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মহাখালীর ডিএনসিসি মার্কেটে মশককর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময়সভায় এসব নির্দেশনা দেন মেয়র।

সম্প্রতি ডিএনসিসি এলাকায় মশার উপদ্রব অসহনীয় হয়ে ওঠায় সমালোচনার মুখে পড়ে সংস্থাটি। মশা নিয়ন্ত্রণে আনতে নগরবাসীর জোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে জুতসই ব্যবস্থা নিতে মশককর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়সভার আয়োজন করেন আতিকুল ইসলাম।

মতবিনিময়সভায় মশা নিধনে প্রতিবন্ধকতাগুলো মেয়রকে জানান ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা। ডোবা ও নালা-নর্দমায় জমে থাকা পানি, মশককর্মীদের দায়িত্বে অবহেলা, জলাশয়ের কচুরিপানা পরিষ্কার না করা, ওষুধ বণ্টন প্রক্রিয়া, প্রয়োজনীয় মশককর্মী না থাকা এবং কর্মীদের প্রণোদনার অভাবকে দায়ী করেন তাঁরা।

মশককর্মীদের নিয়মিত কাজে গড়িমসির অভিযোগ রয়েছে—এমন মন্তব্য করে ডিএনসিসির মেয়র বলেন, ‘মশা নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য আপনাদের কোনো পরিকল্পনা থাকলে আগামী সোমবারের মধ্যে জানাবেন। প্রতি ওয়ার্ডে নিয়োজিত মশককর্মীরা কাজ সুচারুভাবে করছেন কি না, তা দেখতে সরেজমিনে থাকব আমি।’

এক সপ্তাহের মধ্যে মশা নিয়ন্ত্রণে আনার ঘোষণা দিয়ে মেয়র বলেন, মঙ্গলবার থেকে মশা নিয়ন্ত্রণে আনতে ক্রাশ কর্মসূচি নেওয়া হবে। নালা-নর্দমা পরিষ্কার করা হবে। ঢাকা উত্তর সিটিতে মশা নিয়ন্ত্রণে এয়ারপোর্ট এলাকায়ও ক্রাশ কর্মসূচি নিতে বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। মশক নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি তদারকির জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের সম্পৃক্ত করার পরিকল্পনার কথাও বলেন মেয়র। 

মশক ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জন্য প্রণোদনার ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘মশক ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের মেডিক্যাল কার্ডের আওতায় আনা হবে। তাদের আবাসনের বিষয়টি নিয়ে ভাবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা রয়েছে।’

মতবিনিময়সভায় ডিএনসিসির মশক নিয়ন্ত্রণ স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও কাউন্সিলর দেওয়ান আব্দুল মান্নান, সদস্য মো. জিন্নাত আলী, মো. লিয়াকত আলী, ফরিদুর রহমান খান, সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাই, সচিব রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়া, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জাকির হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য