kalerkantho

পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৬

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



কথিত বন্দুকযুদ্ধে ছয়জন নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ও গতকাল শুক্রবার ভোরে রাজধানী ঢাকাসহ পাঁচ জেলায় র‌্যাব, বিজিবি ও পুলিশের সঙ্গে পৃথকভাবে এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নিহতরা চিহ্নিত ডাকাত, ছিনতাইকারী ও মাদক কারবারি। নিজস্ব প্রতিবেদক, স্থানীয় অফিস ও প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন বিস্তারিত—

ঢাকা : পুরান ঢাকার পার গেণ্ডারিয়ায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে হযরত আলী (৩৭) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটার দিকে পুরান ঢাকার পার গেণ্ডারিয়ায় মাদকবিরোধী অভিযান চালানো হয়। পুলিশের দলটি ঘটনাস্থলে গেলে সেখানে অবস্থান নিয়ে থাকা মাদক কারবারিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ও বোমা ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলি থামার পর হযরত আলীকে সেখানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

যাত্রাবাড়ী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, হযরত আলীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় হত্যা, ডাকাতি ও মাদক পাচারের অর্ধশত মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি ছোরা, একটি ককটেল ও এক হাজার ১০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া গেছে। এই অভিযানে পুলিশের দুই সদস্যও আহত হয়েছেন।

টেকনাফ (কক্সবাজার) : র‌্যাব ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ টেকনাফে দুজন নিহত হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নিহতদের মধ্যে রোহিঙ্গা নূরুল আলম চিহ্নিত ডাকাত। অন্যজন বেল্লাল হোসেন মাদক কারবারি।

সূত্র জানায়, গতকাল ভোরে র‌্যাব-১৫-এর নিয়মিত টহলের সময় টেকনাফের দমদমিয়া এলাকায় পাহাড়ি বনে কিছু লোককে অবস্থান করতে দেখা যায়। র‌্যাব সদস্যরা সেদিকে এগিয়ে গেলে তারা অতর্কিতে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব পাল্টা গুলি চালালে তারা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলে একজনের লাশ পাওয়া যায়।

র‌্যাব-১৫ টেকনাফ ক্যাম্প ইনচার্জ লেফটেন্যান্ট মির্জা শাহেদ মাহতাব বলেন, ‘নিহত নূরুল আলম শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত। সে ২০১৬ সালে টেকনাফের শালবন আনসার ক্যাম্পের ১১টি অস্ত্র লুট ও আনসার সদস্য আলী হোসেনের হত্যাকারী। তার বিরুদ্ধে ক্যাম্পে ইয়াবা কারবার, ডাকাতি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে। 

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বস্তি : নূরুল আলম ডাকাত নিহত হওয়ার খবরে টেকনাফে বিশেষত রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর বাসিন্দারা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নূরুল আলম টেকনাফের নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের এইচ-ব্লকে বসবাস করলেও লেদা, মৌচনী, জাদিমুড়া, শালবন ও চাকমারকুল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সর্বত্র তার বিচরণ ছিল। টেকনাফের স্থানীয় কিছু যুবকও তার বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত ছিল।

লেদা ক্যাম্পে বসবাসরত রোহিঙ্গারা অভিযোগ করেছে, নূরুল আলম ডাকাত ও তার সহযোগীদের সামনে কেউ মুখ খুলে কথা বলতে পারত না।’

এদিকে টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আছাদুদ জামান চৌধুরী বলেন, ‘বেল্লাল হোসেন নামক এক যুবককে কক্সবাজার ৩৪ বিজিবি আটক করে। পরে তার স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে ৩৪ বিজিবি ও ২ বিজিবির যৌথ টহলদল তাকে নিয়ে সাবরাং কাটাবুনিয়া এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় ওত পেতে থাকা সন্ত্রাসী ও মাদক কারবারিরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে বেল্লালকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। বিজিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় বেল্লাল গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।’

ময়মনসিংহ : মহানগরের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আব্দুর রশিদ (৫০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। স্থানীয় মরহুম রফিকুল ইসলামের ছেলে আব্দুর রশিদ সেহড়া ডিবি রোডে ভাড়া থাকতেন। তিনি ময়মনসিংহ পতিতাপল্লীর ভেতরে একটি মদের দোকানের কর্মচারী ছিলেন।

পুলিশ সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় হোমিওপ্যাথ কলেজ মাঠে মাদক কারবারিরা মাদক ভাগাভাগি করছে—এমন খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। টের পেয়ে মাদক কারবারিরা পুলিশের ওপর হামলা চালালে পুলিশ পাল্টাগুলি চালায়। পরে সেখানে রশিদের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

খুলনা : পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ খুলনায় মাসুদ রানা ওরফে মাসুদ (৩৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে নিরালা দীঘিরপার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, মাদক বিক্রির গোপন খবর পেয়ে সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশের একটি দল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে নিরালা দীঘিরপাড় এলাকায় হাজির হয়। মাদক কারবারিরা টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে এলাপাতাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করলে আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়। একপর্যায়ে মাদক কারবারিরা পিছু হটলে পুলিশ ঘটনাস্থল তল্লাশি করে গুরুতর আহত অবস্থায় মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, চাপাতি, ছোরা, ১০০ পিস ইয়াবা ও সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। মাসুদ নগরীর বসুপাড়ার মৃত আব্দুল হকের ছেলে।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘মাদক কারবারিদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত ও পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হন। মাসুদ পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি।’

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) : তিতাস উপজেলায় ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া এক ব্যক্তি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বাজারের রিয়াজ ট্রেড অ্যান্ড বিকাশ ডিলারের ম্যানেজার শাকিল রিয়াজ ও তাঁর দুই কর্মচারী ৫৮ লাখ টাকা নিয়ে বিকাশ এজেন্টদের টাকা দিতে অটোরিকশাযোগে যাচ্ছিলেন। তিতাস উপজেলার দড়িকান্দিতে পৌঁছার পর দুটি অটোরিকশায় সাত-আটজন ছিনতাইকারী তাঁদের গতি রোধ করে অস্ত্রের মুখে পুরো টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

পুলিশ পরে অভিযান চালিয়ে উপজেলার জিয়ারকান্দি থেকে আল-আমিন ও উমরকে আটক করে। পরে আল-আমিনের ঘরে তল্লাশি চালিয়ে ১৫ লাখ টাকাসহ বিপুল দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে। রাতেই তিতাস থানার পুলিশ ও কুমিল্লা ডিবি পুলিশের একটি দল আল-আমিনকে সঙ্গে নিয়ে বাকি টাকা ও অস্ত্র উদ্ধারের জন্য বের হয়। তারা জিয়ারকান্দিতে আসার পথে দড়িকান্দি সেতুর কাছে ওত পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা আল-আমিনকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশকে লক্ষ্য গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে দু-পক্ষে বন্দুকযুদ্ধে আল-আমিন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

মন্তব্য