kalerkantho

১৯৩ শিশুর সবাইকে বিজয়ী ঘোষণা

মুগ্ধতা ছড়াল রাঙামাটির গ্লোবাল ভিলেজ, স্কুলবেলা

ফজলে এলাহী, রাঙামাটি   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টানা এক যুগের ধারাবাহিকতায় এবারও পার্বত্য শহর রাঙামাটিতে মহান একুশে উপলক্ষে বর্ণলিখন, চিত্রাঙ্কন ও আবৃত্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে গ্লোবাল ভিলেজ রাঙামাটি ও স্কুলবেলা। ২০০৮ সাল থেকে প্রতিবছর রাঙামাটি শহীদ মিনারে কোমলমতি শিশুদের জন্য এ আয়োজন করা হচ্ছে।

একুশের সকালে বরাবরের মতোই রাঙামাটি শহীদ মিনার চত্বরে জড়ো হয় কয়েক শ শিশু-কিশোর। শিশু শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত আয়োজিত এসব প্রতিযোগিতা শেষে সবচেয়ে বড় চমক ছিল সব শিশুকে বিজয়ী ঘোষণা করা। আয়োজকদের পক্ষ থেকে  ফজলে এলাহী ঘোষণা দেন, ‘প্রতিবছরই আমরা এই আয়োজনটা করি এবং তিনটি বিভাগে ৬০ জনের মতো শিশুকে পুরস্কার দিই। কিন্তু আমরা লক্ষ করেছি, পুরস্কার না পাওয়া শিশুরা মন খারাপ করে ফিরে যায়, অথচ প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া শিশুদের সবার পারফরম্যান্সে খুব একটা পার্থক্য থাকে না। তাই শিশু মুখের হাসি ধরে রাখতেই আমরা এবার সবাইকে বিজয়ী ঘোষণা করেছি।’

প্রতিযোগিতার কার্যক্রম আঁকা ও লেখা পরিদর্শন করে সবার হাতে পুরস্কার তুলে দেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এনডিসি। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য (প্রশাসন) শাহীনুর আলম, জনসংযোগ কর্মকর্তা মংছেন রাখাইন, কবি হাসান মঞ্জু, মনির আহমেদ, চারুশিল্পী রেজাউল করিম, মো. ইব্রাহীম, স্কুলবেলার প্রতিষ্ঠাকালীন সম্পাদক জসীমউদ্দীন, গ্লোবাল ভিলেজের পরিচালক হেফাজত সবুজ, প্রচার সহযোগী পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডটকম ও দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রামের বার্তা সম্পাদক ইয়াছিন রানা সোহেল, ডেস্ক এডিটর শংকর হোড়, পার্বত্য চট্টগ্রাম ডিবেট ফেডারেশনের সংগঠক ইশরাত জাহান ও তুষার ধর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা বলেন, ‘এটি একটি অসাধারণ আয়োজন। ছোট্ট শিশুদের নিয়ে একুশের সকালে একটি আয়োজন টানা বারো বছর ধরে চালিয়ে নেওয়া ছোট্ট কোনো ঘটনা নয়। আমি উদ্যোক্তাদের সাধুবাদ জানাই। আমি চাই এই আয়োজনটি ধারাবাহিকভাবে চলুক।’ প্রধান অতিথি তাঁর পক্ষ থেকেও বিজয়ী সব শিশুর হাতে রংতুলির একটি সুন্দর বক্স তুলে দেন।

প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েই বিজয়ী হওয়া ১৯৩ শিশুর প্রত্যেকের হাতেই তুলে দেওয়া হয় ক্রেস্ট, সনদপত্র ও রঙের বক্স। পরে এসব শিশু সবাই শহীদ মিনারে মাদক ও  দুর্নীতির বিরুদ্ধে ও দেশপ্রেমের শপথ নেয় এবং উচ্চৈঃস্বরে ‘জয় বাংলা’ ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে মুখর করে তোলে পুরো শহীদ মিনার চত্বর।

মন্তব্য