kalerkantho


ভুয়া দুদকে ঘুষের ফাঁদ

আনিসের সহযোগী আরেক ভুয়া কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে রাজু মিয়া (২৮) নামে আরো এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ভুয়া রেজিস্ট্রেশনে থাকা ১২টি সিম জব্দ করা হয়েছে। সে এর আগে গ্রেপ্তার হওয়া সংঘবদ্ধ চক্রের প্রধান আনিসুর রহমান বাবুলের ঘনিষ্ঠ সহযোগী।

জানতে চাইলে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় র‌্যাব-২-এর কম্পানি কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার রাতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে রাজু মিয়া নামে ওই ভুয়া দুদক কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধা সদরের কুটিপাড়ায়। সে এ পর্যন্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছ থেকে দুদক কর্মকর্তা পরিচয়ে ১৪ লাখ ১২ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছে।’

মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, “গত শুক্রবার কালের কণ্ঠে ‘ভুয়া দুদকে ঘুষের ফাঁদে হাজারো দুর্নীতিবাজ’ শিরোনামে প্রকাশিত সরেজমিন প্রতিবেদনটি বস্তুনিষ্ঠ। এই প্রতিবেদন আমাদের তদন্ত এগিয়ে নিতে অনেক কাজে লাগবে।” তিনি আরো বলেন, ‘এই চক্রের আরো অনেক সদস্যের পাশাপাশি যেসব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ভুয়া দুদক কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে নিজেদের দুর্নীতি আড়ালের চেষ্টা করেছিলেন তাঁদেরও ধরার চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যে তাঁদের সম্পর্কে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।’

র‌্যাব-২ সূত্র গতকাল জানায়, গ্রেপ্তার হওয়া রাজু কয়েক বছর ধরে দুদকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনের ব্যক্তিগত নম্বর থেকে কল করে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করে আসছিল। সে এর আগে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার আনিসুর রহমান বাবুলের সহযোগী। বাবুলের সঙ্গে থেকে প্রতারণা করার কথা সে স্বীকার করেছে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজু র‌্যাবকে জানায়, দীর্ঘদিন ধরে সে দুদক কর্মকর্তা পরিচয়ে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তাদের ফোন দিত। দুর্নীতির মামলা হবে বা মামলার তদন্ত চলছে—এমন ভয় দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে সে অর্থ আদায় ও হয়রানি করত।



মন্তব্য