kalerkantho

বহির্বিশ্বে ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে পারে সংস্কৃতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বহির্বিশ্বে ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে পারে সংস্কৃতি

শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বাড়াতে উজ্জ্বল ভূমিকা রাখতে পারে আমাদের সংস্কৃতি। কয়েক হাজার বছরের পুরনো ইতিহাস ঐতিহ্যের অনন্য দেশ বাংলাদেশেরও রয়েছে অত্যন্ত সমৃদ্ধ সংস্কৃতি। অসাম্প্রদায়িক এবং মানবিক বোধের এ সংস্কৃতি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাড়াতে পারে দেশের পরিচিতি। আমাদের মঞ্চনাটক, চলচ্চিত্র বহির্বিশ্বে তুলে ধরতে পারলে দেশের ভাবমূর্তি বাড়বে।

গতকাল সোমবার শিল্পকলা একাডেমির ইন্টারন্যাশনাল কালচারাল কো-অর্ডিনেশন সেলের আওতায় ‘আন্তর্জাতিক বিশ্বে বাংলাদেশের সংস্কৃতি’ শীর্ষক আলোচনা দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার কক্ষে এ আয়োজনে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের মঞ্চনাটক তুলে ধরতে নানা উদ্যোগের কথা বলেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার। অনুরূপভাবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের চলচ্চিত্র তুলে ধরতে নানা পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন চলচ্চিত্রকার মোরশেদুল ইসলাম। তারা বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় যৌথভাবে উদ্যোগ নিলে দেশের সংস্কৃতি বহির্বিশ্বে উপস্থাপন করা সম্ভব হবে।

রামেন্দু মজুমদার বলেন, অর্থনৈতিকভাবে আমাদের দেশ খুব সমৃদ্ধ নয়। কিন্তু আমাদের রয়েছে সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। আমরা এ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য নিয়ে বহির্বিশ্বে উপস্থিত হতে পারি। দেশের ভাবমূর্তি বহির্বিশ্বে তুলে ধরতে সংস্কৃতি হতে পারে প্রধান মাধ্যম। এর জন্য দরকার সঠিক পরিকল্পনা ও উদ্যোগ। বাংলাদেশের মঞ্চনাটক অত্যন্ত সমৃদ্ধ। পৃথিবীর নানা দেশে আমরা মঞ্চনাটক প্রদর্শনীর আয়োজন করতে পারি। এতে অন্যান্য দেশের মানুষ যেমন বাংলাদেশ সম্পর্কে জানবে, তেমনি জানবে আমাদের সংস্কৃতি সম্পর্কেও।

মোরশেদুল ইসলাম বলেন, আমাদের চলচ্চিত্র নির্মাণের ইতিহাস খুব পুরনো নয়। এর পরও আমাদের অনেক চলচ্চিত্র পৃথিবীর নানা দেশে প্রশংসিত হয়েছে। বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কৃত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশ্বজনমত গঠনে দারুণ ভূমিকা রেখেছে জহির রায়হানের প্রামাণ্যচিত্র ‘স্টপ জেনোসাইড’। এ ছাড়াও আমাদের চলচ্চিত্র ‘চাকা’, ‘আগামী’, ‘সূর্যদীঘল বাড়ি’, ‘মাটির ময়না’ ইত্যাদি পৃথিবীর নানা দেশে প্রদর্শিত হয়েছে, পুরস্কৃত হয়েছে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি লিয়াকত আলী লাকী বলেন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আয়োজনে নাটক, গান ও নৃত্যের শিশুদল ও বড়দের দল নিয়ে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। বহির্বিশ্বে এ ধরনের আয়োজনে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে নিজেকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি নিজের দেশকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা সমাদৃত হয়েছে।

নৃত্যাচার্যকে নিয়ে বছরব্যাপী আয়োজন শুরু : নৃত্যাচার্য বুলবুল চৌধুরীর জীবনকাল ছিল মাত্র ৩৫ বছরের। স্বল্প সময়কালে নৃত্যে তাঁর অবদান আজও নতমস্তকে স্বীকার করেন নৃত্যশিল্পীরা। গত ১ জানুয়ারি ছিল তাঁর জন্মশতবর্ষ। এ উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমি ও নৃত্যশিল্পী সংস্থা যৌথভাবে আয়োজন করেছে বছরব্যাপী অনুষ্ঠানমালা। গতকাল শিল্পকলা একাডেমিতে এ আয়োজনের উদ্বোধন করা হয়েছে।

শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে মঙ্গলদীপ জ্বালিয়ে আয়োজনের উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্মুদ চৌধুরী।

মন্তব্য