kalerkantho


গৃহবধূকে গণধর্ষণ

নোয়াখালীতে আটক আরো তিনজন

নোয়াখালী প্রতিনিধি   

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



নোয়াখালীর কবিরহাটের ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নবগ্রামে ঘরের সিঁধ কেটে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নির্যাতিতার দেবরসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এদিকে গ্রেপ্তার হওয়া প্রধান আসামি জাকের হোসেন আদালতে ১৬৪ ধারায় এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে স্বীকোরোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে জাকের বলেছেন, দেবর আবদুর রব হোসেন মান্না, তাঁর মামাতো ননদের জামাতা সেলিম ও হারুনুর রশিদ ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেছেন।

এদিকে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। গতকাল রবিবার সকালে নবগ্রাম নিমতলা সমিতির বাজারে ঘণ্টাব্যাপী এ কর্মসূচি পালন করা হয়। এ মানববন্ধনে সহস্রাধিক নারী-পুরুষ ও শিক্ষক-শিক্ষার্থী অংশ নেন।

কবিরহাট থানার ওসি মির্জা মো. হাসান জানান, জাকের হোসেন জহির জিজ্ঞাসাবাদে বলেন, পারিবারিক বিরোধের জেরে ধর্ষিতার স্বামীর সত্ভাই আবদুর রব হোসেন মান্না এ ঘটনার মূল হোতা। তাঁর ভাই জেলে থাকার সুবাদে মান্না তাঁকেসহ ধর্ষিতার মামাতো দেবর সেলিম এবং একই গ্রামের হারুনকে সঙ্গে নিয়ে শুক্রবার গভীর রাতে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করেন। গত শনিবার বিকেলে জাকের নোয়াখালী আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে চাইলে তাঁকে বিচারক উজমা শুকরানার ৪ নম্বর আমলি আদালতে পাঠান। সেখানে আদালতে বিচারকের খাস কামরায় নিজের দোষ স্বীকার করে ধর্ষণের বর্ণনা দেন তিনি।



মন্তব্য