kalerkantho


কোচিং বাণিজ্যের অভিযোগ

৩০ শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দুদকের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



কোচিং বাণিজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে রাজধানীর উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৩০ শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এক অভিযানে ওই শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কোচিং বাণিজ্যের অভিযোগের সত্যতা পায়। এ অবস্থায় সংস্থাটির অভিযান পরিচালনাকারী দলের নির্দেশে তাত্ক্ষণিকভাবে তাঁদের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

এ ছাড়া ভর্তিসংক্রান্ত অনিয়মের অভিযোগে গঠিত হয়েছে একটি তদন্ত কমিটি।

দুদক হটলাইনে (১০৬) অভিযোগ পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ওই স্কুলে অভিযান চালায় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. জাভেদ হাবীব এবং উপসহকারী পরিচালক আফনান জান্নাত কেয়ার সমন্বয়ে গঠিত একটি দল।

সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দুদক টিম দেখতে পায়, ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ২০১৭ সালে কোচিং করাবেন না মর্মে অঙ্গীকারনামা প্রদান করা সত্ত্বেও নীতিমালা ভঙ্গ করে শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করছেন। দুদক টিমের নির্দেশে তাত্ক্ষণিকভাবে এ অনিয়মের সঙ্গে জড়িত ৩০ জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করা হয়।

অভিযানকালে দুদক টিম দেখতে পায় যে নবম শ্রেণির কয়েকজন শিক্ষার্থী বার্ষিক পরীক্ষায় বেশ কয়েকটি বিষয়ে অকৃতকার্য হওয়া সত্ত্বেও একজন শ্রেণি শিক্ষক তাদের দশম শ্রেণিতে ভর্তির উদ্যোগ নিয়েছেন। দুদক টিমের উপস্থিতিতে এ অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

এর আগে রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভিআইপি কোটাকে সামনে রেখে ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে গত ১৭ জানুয়ারি দুদকের একটি দল ওই স্কুলে অভিযান চালায়। দুদক টিম প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পায়। এ বিষয়ে অধিকতর যাচাই চলমান রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে এনফোর্সমেন্ট টিমের সমন্বয়ক দুদকের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, ‘ভর্তি এবং কোচিং বাণিজ্যসংক্রান্ত যাবতীয় অভিযোগ দুদক গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। দুদকের তৎপরতায় শিক্ষাসংক্রান্ত অভিযোগগুলোতে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



মন্তব্য