kalerkantho


তিন দিনের ছুটিতে ফেরিঘাটে চাপ

শিমুলিয়ায় অপেক্ষায় কয়েক শ যানবাহন

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



তিন দিনের ছুটিতে ফেরিঘাটে চাপ

তিন দিনের ছুটিতে সড়কে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। সেই চাপ গিয়ে পড়েছে ফেরিঘাটে। গতকাল শনিবারও এই চাপ ছিল। মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়ায় ঘাটে অপেক্ষমাণ গাড়ির সারি চার কিলোমিটার বিস্তৃত হয়। পদ্মার এই প্রান্তে সাড়ে সাত শ যান পারাপারের অপেক্ষায় ছিল। এতে যাত্রীরাও দুর্ভোগের শিকার হয়।

জানা যায়, গত শুক্রবার সরকারি ছুটি শুরুর আগের দিন বৃহস্পতিবার থেকেই সড়কে যানবাহনের চাপ বাড়ে। আগের দিন প্রধানমন্ত্রী এই পথে গোপালগঞ্জে যান। রবিবার বিজয় দিবস হওয়ায় তিন দিন ছুটি পেয়ে যান সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা। এই ছুটিতে ঢাকার বাইরে যাওয়ার হিড়িক পড়ে যায়। সব মিলিয়ে অন্যান্য মহাসড়কের মতো দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যাওয়ার এই পথেও যানবাহনের চাপ বেড়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডাব্লিউটিসি) সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) বরকতউল্লাহ কালের কণ্ঠকে বলেন, কয়েক দিন ধরে যানবাহনের চাপ বেড়ে গেছে। মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী নৌপথেও চাপ তৈরি হয়েছে। তিনি জানান, বিরামহীনভাবে দুটি রো রো, ছয়টি ড্রাম, চারটি কে-টাইপ, তিনটি মিডিয়াম, একটি ছোট ফেরিসহ মোট ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। কোনো ফেরি অচল নেই। তবে দুটি রো রো ফেরির ঘাটতি রয়েছে। ফেরি দুটি এ ঘাট থেকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে নিয়ে গেলেও তা আর ফেরত দেওয়া হয়নি। তা ছাড়া একটি ফেরিতে রয়েছে কর্মচারী স্বল্পতা। সে কারণে রাতে ফেরিটি চালানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে ফেরি চলাচলে প্রাকৃতিক কোনো সমস্যা না হলে অচিরেই ঘাটে যানবাহনের চাপ কমানো সম্ভব হবে বলে তিনি আশা করছেন।

গতকাল সরেজমিনে শিমুলিয়া ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, পার্কিং ইয়ার্ডগুলো ছোট গাড়ি দিয়ে পরিপূর্ণ, রাস্তার দুই পাশে যাত্রীসহ অসংখ্য যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। অন্যদিকে সাত শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের দীর্ঘ সারি ছড়িয়ে পড়েছে ঘাট থেকে প্রায় চার কিলোমিটার দূরে পদ্মা সেতুর টোল প্লাজা পর্যন্ত। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে যানবাহনগুলোকে।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ পরিদর্শক মো. আরমান হোসেন কালের কণ্ঠকে জানান, দুর্ভোগের শিকার হওয়া যাত্রী ও যানবাহনচালকদের নিরাপত্তার জন্য নৌ পুলিশ সদস্যরা কাজ করছেন। ফেরিগুলো ঠিকভাবে চললে ঘাটে যানবাহনের সংখ্যা কমে আসবে।

 



মন্তব্য