kalerkantho


আ. লীগের মনোনয়ন

তালিকা প্রকাশ ২৫ নভেম্বরের মধ্যে : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, তাঁদের দলীয় মনোনয়নের কাজ শেষ হলেও জোটের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে আলোচনা চলছে। মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা আগামী ২৫ নভেম্বরের মধ্যে প্রকাশ করা হবে। গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা গতকাল সড়ক পরিবহন মন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। পরে মন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের দলীয় মনোনয়নের কাজ আমরা মোটামুটি শেষ করেছি। আসন ভাগাভাগি নিয়ে এখন জোটের সঙ্গে আমরা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। আগামী ২৪ থেকে ২৫ নভেম্বরের মধ্যে মনোনয়ন চূড়ান্ত হবে।’

জাতীয় পার্টির অন্য কোনো জোটে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘আমরা যেকোনো ধরনের পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত আছি। আমরা আমাদের সব রকমের প্রস্তুতি নিয়ে নির্বাচনে লড়াই করতে যাচ্ছি। কাজেই কোনো ফাঁক-ফোকর রেখে আমরা যাচ্ছি না। এরশাদকে আমরা ভয় পাব কেন? এরশাদ সাহেবের অধিকার আছে। উনি যদি অন্য কোথাও যেতে চান আমরা কি বাধা দিয়ে রাখতে পারব? তবে মহাজোটের যে প্রস্তুতি তাতে কোনো বিঘ্ন ঘটবে বলে আমার মনে হয় না।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা একটি করে আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভানেত্রী গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়া ও রংপুর থেকে এবং আমরা সবাই একটি আসন থেকে নির্বাচন করব।’

এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘মন্ত্রীরা খারাপ লোক! কোন মন্ত্রী খারাপ আমাকে বলেন? কিভাবে মেজার করব ওমুক খারাপ লোক? সেটা তো প্রমাণ হতে হবে। এর পরও যাদের নিয়ে কন্ট্রোভার্সি (বিতর্ক) আছে। আমি দুটি আসনের কথা বলতে পারি, একটা হচ্ছে কক্সবাজার সেটা উখিয়া-টেকনাফ, সেখানে আমাদের আবদুর রহমান বদিকে ড্রপ করে তাঁর স্ত্রীকে দিয়েছি। বদিকে আমরা মনোনয়ন দিইনি। এটা আমি আগেভাগেই বলছি, যদিও আমরা ঘোষণা দিইনি।’ তিনি বলেন, ‘আরেকটা হচ্ছে টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে মার্ডারের অভিযোগে এমপি (আমানুর রহমান রানা) কারাগারে। সেখানে জেলা আওয়ামী লীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট রানার বাবা আতাউর রহমান খানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।’ জরিপ প্রতিবেদন অনুযায়ী জনপ্রিয়তার রেটিংয়ে অনেক বেশি ব্যবধানে রানা ও বদি এগিয়ে আছেন বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। স্ত্রীকে মনোনয়ন দেওয়ায় ক্ষমতা তো বদির ঘরেই থাকল বলে মন্তব্য করেন এক সাংবাদিক। এর পরিপ্রেক্ষিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ঘরে থাকলে কী এসে যায়, ঘরের সবাই কি অপরাধী? আপনি কোনো কারণে অপরাধী, তাহলে আপনার মা-বাবা, ভাই-বোনরা আপনারা অপরাধের ভাগীদার? এটা চিন্তা করতে হবে। পরিবারের সব খারাপ লোক? যার (বদি) কথা বলা হচ্ছে সে কি খারাপ লোক? সেটা কি প্রমাণিত? বদি সম্পর্কে যে কন্ট্রোভার্সি আছে তা কি আপনারা প্রমাণ করতে পেরেছেন? তার পরও যেহেতু কন্ট্রোভার্সি আছে, আমরা কন্ট্রোভার্সি অ্যাভয়েড করতে চাচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থীদের বাদ পড়ার সম্ভাবনা প্রসঙ্গে কাদের বলেন, ‘পড়তে পারেন, তবে আমি এই মুহূর্তে বলব না। নানা কারণে বাদ পড়তে পারেন কেউ কেউ, সেটা আমি এই মুহূর্তে বলব না।’



মন্তব্য