kalerkantho


নিপীড়কদের চেহারা উন্মোচনের আহ্বান

#মি টু আন্দোলনের সমর্থনে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বিভিন্ন পেশার নারীদের উদ্যোগে ‘নিপীড়িতদের পাশে দাঁড়াই, নিপীড়কদের ঘৃণা করি; আমরা #মি টু আন্দোলনের পক্ষে, আমরা যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে’ শিরোনামে গতকাল রবিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন হয়। বাংলাদেশের যেসব নারী মুখ খুলেছেন, তাঁদের সাহসী আখ্যা দিয়ে নিপীড়নের শিকার সব নারীকে মুখ খুলে সমাজে নিপীড়কদের চেহারা উন্মোচনের আহ্বান জানান মানববন্ধনের বক্তারা। তাঁরা বলেন, যৌন নিপীড়ন বন্ধের জন্যই নির্যাতিতদের পরিস্থিতি তুলে ধরতে হবে। একই সঙ্গে নিপীড়কদের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন, বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনু, সাংবাদিক শাহনাজ শারমিন, শারমিন রিনভী, উদিসা ইসলাম, শুকুর আলী শুভ, শেখ মামুন, নাদিয়া শারমিন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী মুশফিকা লাইজুসহ বিভিন্ন পেশার নারী-পুরুষ।

অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন বলেন, ‘নিপীড়নের বিরুদ্ধে অল্প কিছু নারী ও পুরুষ #মি টু আন্দোলন করলেও এই নির্যাতনের বিষয়টি সবার জানা আছে। এর মধ্যে আমাদের নিজেদের লোক, রাস্তাঘাটে যে কেউ দুর্বলকে নির্যাতন করে। #মি টু কেবল একটা কথা শুরু করেছে। যে জিনিসগুলো আমরা জানতাম কিন্তু চুপ করে থাকতাম, সেই জিনিসগুলোকে স্পষ্ট করছে, সামনে আনছে।’

গীতি আরা নাসরিন আরো বলেন, ‘এখন সুবিধা হলো যে চট করে কেউ নিপীড়ন করতে এখন সামান্য হলেও ভয় পাবে। এটা যতই জোরালো হবে, মেয়েরা জানবে, ছেলেরা জানবে যে নির্যাতন বলে দেওয়া যায়। তখন যারা এই নির্যাতন করে, তারা ভয় পেতে শুরু করবে।’

খুশী কবির বলেন, ‘যেসব নারী মুখ খুলেছে, এর মধ্য দিয়ে তারা সমাজে নিপীড়কদের চেহারা, তাদের চরিত্র ও পরিচয় উন্মুক্ত করেছে। এসব নারীর কাছে আমি কৃতজ্ঞ। যাকে নিপীড়ন করা হয়েছে, তাকে আমরা দোষারোপ করব না। নিপীড়কদের আসল চেহারা আমরা উন্মোচন করতে চাই। এটাই #মি টুর আসল উদ্দেশ্য।’



মন্তব্য