kalerkantho


প্রধানমন্ত্রীকে ইসি অনুমতি দিল, অর্থমন্ত্রীকে ‘না’

বিশেষ প্রতিনিধি   

১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতির বিষয়ে অনাপত্তি জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে গতকাল বৃহস্পতিবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে এ অনাপত্তির কথা জানানো হয়। আগামী ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে ১০৭তম, ১০৮তম এবং ১০৯তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। গত বুধবার প্রধানমন্ত্রীর এ অনুষ্ঠানের কথা নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছিল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। কমিশন গতকাল এ বিষয়ে কোনো আপত্তি নেই বলে জানিয়ে দেয়।

অন্যদিকে ঐতিহ্য অন্বেষণ (প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা কেন্দ্র) সংস্থার একটি অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের অংশ নেওয়ার বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছে ইসি। আগামীকাল ঢাকায় ‘ভাই গিরিশচন্দ্র সেন মিউজিয়াম, পাঁচদোনা, নরসিংদী’ নামক প্রকল্পের উদ্বোধন করা হবে। ভারতীয় হাইকমিশনের অর্থায়নে আয়োজিত অনুষ্ঠানটি অরাজনৈতিক হওয়ায় সেটির বিষয়ে অনাপত্তি জানিয়েছে কমিশন। কিন্তু অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রীর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার বিষয়ে গতকাল আপত্তি জানায় ইসি, উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে।

সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা অনুসারে তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচনের ফলাফল সরকারি গেজেটে প্রকাশের তারিখ পর্যন্ত সময়কে নির্বাচনপূর্ব সময় ধরা হয়েছে। আর সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্পিকার, সরকারের মন্ত্রী, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, বিরোধীদলীয় নেতা, বিরোধীদলীয় উপনেতা, প্রতিমন্ত্রী, হুইপ, উপমন্ত্রী ও তাঁদের সমমর্যাদাসম্পন্ন কোন ব্যক্তি, সংসদ সদস্য এবং সিটি করপোরেশনের মেয়র। আচরণবিধিতে বলা হয়, এই সময়টাতে অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা কোনো সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে রাজস্ব বা উন্নয়ন তহবিলভুক্ত কোনো প্রকল্পের অনুমোদন, ঘোষণা বা ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন কিংবা ফলক উন্মোচন করতে পারবেন না। তাঁরা সরকারি বা আধাসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের তহবিল থেকে কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে কোনো প্রকার অনুদান ঘোষণা বা বরাদ্দ প্রদান বা অর্থ অবমুক্ত করতে পারবেন না। তাঁরা তাঁদের সরকারি কর্মসূচির সঙ্গে নির্বাচন কর্মসূচি যোগ করতে এবং তাঁদের নিজেদের বা অন্যদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় সরকারি যান, সরকারি প্রচারযন্ত্রের ব্যবহার বা অন্য কোনো সরকারি সুবিধা ভোগও করতে পারবেন না।



মন্তব্য