kalerkantho


রাস্তায় ফেলে দেওয়া সেই মা বাঁচলেন না

মাদারীপুর প্রতিনিধি   

১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



রাস্তায় ফেলে দেওয়া সেই মা বাঁচলেন না

গভীর রাতে সন্তানরা রাস্তায় ফেলে গিয়েছিল বৃদ্ধ মাকে। সেই মাকে বাঁচানো যায়নি। এমনকি মৃত্যুর আগেও জানা যায়নি সেই মা ও তাঁর সন্তানদের পরিচয়। ১৩ দিন পর গত সোমবার গভীর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মাদারীপুর সদর হাসপাতালে মারা যান। গতকাল মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম ও পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদের তত্ত্বাবধানে ঈদগাহ ময়দানে জানাজা শেষে দরগাখোলা কবরস্থানে তাঁর লাশ দাফন করা হয়।

গত ৩১ অক্টোবর গভীর রাতে পৌর এলাকার শকুনী লেকের পার উত্তর পাশে ৮০ বছর বয়সী এক মাকে রাস্তায় ফেলে যায় তাঁর সন্তানরা। পরদিন সকালে দুই শিক্ষার্থী হাঁটতে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ওই বৃদ্ধা প্রথম দিন নিজের নাম জোবেদা খাতুন, স্বামীর নাম অজয় মল্লিক, ছেলেদের নাম আলমগীর ও সোবাহান বলেছিলেন। আর তাঁকে সন্তান-বউ মিলে ফেলে রেখে যাওয়ার কথাটুকুই শুধু বলতে পেরেছিলেন। তারপর থেকে আর কথা বলতে পারেননি।

উদ্ধারকারী সরকারি নাজিমউদ্দিন কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী বিলাস হালদার ও মেহেদী ইসলাম বলেন, ‘সকালে লেকের পার দিয়ে হাঁটার সময় কেউ পড়ে আছে দেখে এগিয়ে যাই। গিয়ে দেখি হাতে-মাথায় রক্তাক্ত অবস্থায় এক বৃদ্ধা পড়ে আছেন। তাৎক্ষণিক বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে দেই।’

মাদারীপুর সিভিল সার্জন ডা. ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে আমাদের তত্ত্বাবধানে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। সোমবার দিনেরবেলায় খাবারও খেয়েছেন। রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি মারা যান। হাসপাতালে থাকা অবস্থায় পরিবারের কেউ খোঁজ নিতে আমাদের কাছে আসেনি।’ 

মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, ‘বৃদ্ধ মা গত সোমবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান।’



মন্তব্য