kalerkantho


‘ঘুষ দিলে সেবা মেলে’

আরো ছয়জনের শাস্তি, ডিএনসিসির তদন্ত কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



কালের কণ্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর আরো এক কর্মচারীকে বরখাস্ত এবং পাঁচ কর্মচারীকে শাস্তিমূলক বদলি করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। এ ছাড়া সংবাদে উঠে আসা ঘুষের বিষয়টি তদন্ত করতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে সংস্থাটি। একই কারণে নগরবাসীকে সচেতন করতে সংবাদপত্রে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গত রবিবার এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ডিএনসিসি সূত্র জানায়, কালের কণ্ঠে গত ৩ অক্টোবর ‘ঘুষ দিলে সেবা মেলে’ শীর্ষক সচিত্র প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অঞ্চল-২-এর প্রকৌশল শাখার চেইনম্যান বাবুলকে এক বছরের জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে। এ সময় তিনি বেতন-ভাতা পাবেন না। এর আগে ডিএনসিসির অঞ্চল-২ অফিসের তিন কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ ছাড়া অঞ্চল-৪ অফিসের লাইসেন্স ও বিজ্ঞাপন সুপারভাইজর বুলবুল আহমেদকে অঞ্চল-২ অফিসে, অঞ্চল-২-এর পিয়ন আব্দুর রহমানকে অঞ্চল-২ এবং শাহানা আক্তার রুমাকে অঞ্চল-১ অফিসে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়েছে। এ ছাড়া অঞ্চল-৩-এর আনোয়ার হোসেন এবং সাবিনা ইয়াসমিনকে সংশ্লিষ্ট অফিস থেকে প্রত্যাহার করে প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়। একই সঙ্গে সাবিনা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে এবং তাঁকে উত্তর সিটি করপোরেশন থেকে সরিয়ে নিয়ে তাঁর স্থলে অন্য কোনো ‘ক্রু’ দিতে মশক নিবারণী দপ্তরকে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। কারণ সাবিনা ইয়াসমিন মশক নিবারণী দপ্তরের কর্মচারী।

সংবাদে উঠে আসা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। ডিএনসিসির আইন কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুদা শামিম, রাজস্ব কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান মৃধা ও সহকারী সচিব রাকিবুল হাসান মিরাজকে রাখা হয়েছে ওই কমিটিতে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য কমিটিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।



মন্তব্য