kalerkantho


তারাকান্দায় মধ্যরাতে হামলা পেট্রলে সাত ঘর ভস্মীভূত

আহত ৩, গবাদি পশু ও মালপত্র লুট

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ ও ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



ময়মনসিংহের তারাকান্দায় বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে হামলা চালিয়ে দুর্বৃত্তরা পেট্রল ঢেলে একটি বসতবাড়ির সাতটি ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। এ সময় ১৪টি গরু, একটি ট্রাক্টর, একটি ধান ভাঙানোর মেশিন, তিনটি ফ্রিজসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। আগুনে ধান, চাল, আসবাবপত্রসহ প্রায় অর্ধকোটি টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। হামলাকারীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে দুই নারীসহ তিনজন আহত হয়। উপজেলার পূর্ব পাগুলী গ্রামে ডা. ফখরুজ্জামান নামের এক ব্যক্তির বাড়িতে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

নিকটাত্মীয়দের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা জমিসংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের লোকজন এ হামলা করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই দীর্ঘ সময়ে আদালতে মামলা চললেও তা নিষ্পত্তি না হওয়ায় বিরোধ অব্যাহত থাকে। ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির অন্যতম মালিক ডা. ফখরুজ্জামান ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ। তিনি ময়মনসিংহে শহরে বাস করেন।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও স্থানীয় লোকজন জানায়, তারাকান্দা উপজেলার পূর্ব পাগুলী (আতকাপাড়া) গ্রামের শাহজাহান, হানিফ ও সুলতান  গংয়ের সঙ্গে একই গ্রামের ডা. ফখরুজ্জামান গংয়ের দীর্ঘদিন ধরে জমি ও রাস্তা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে বেশ কয়েকটি মামলাও হয়েছে। এর আগেও দুই পক্ষের মধ্যে একবার মারামারির ঘটনা ঘটে। দুটি পক্ষের লোকজনই পরস্পর নিকটাত্মীয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পূর্ববিরোধের জের ধরে গত বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ১২টার দিকে প্রতিপক্ষের ২০-২৫ ব্যক্তি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ডা. ফখরুজ্জামানের বাড়িতে হামলা চালায়। ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ, তারা বাড়ির ঘরগুলোতে লুটপাট করে এবং পেট্রল ছড়িয়ে সাতটি ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে ঘরসহ ঘরে রাখা আসবাবপত্র, ধান, চাল ও অন্য মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এলাকাবাসী নিজেরা আগুন নেভাতে ব্যর্থ হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভায়। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের অভিযোগ, প্রতিপক্ষের মো. শাহজাহান, হানিফ ও সুলতানের নেতৃত্বে এ হামলা হয়।

হামলার সময় বাড়ির লোকজন ঘর থেকে দৌড়ে বের হয়ে আসে। এ সময় দুর্বৃত্তরা ১৪টি গরু, দুটি ধান ভাঙানোর মেশিন, একটি ট্রাক্টর, ছাগলসহ বেশ কিছু মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে ওই বাড়ির আব্দুর রাজ্জাক (৪৫), আজিদা (৩৫) ও ফজিলা (৬০) মারাত্মক আহত হন। তাঁদের ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে ময়মনসিংহ জেলা ও তারাকান্দা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ ঘটনায় শাহজাহান ও জিয়া নামের দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে তারাকান্দা থানা পুলিশ। হামলার শিকার পরিবারের কল্পনা আক্তার (৪০) ও দশম শ্রেণি পড়ুয়া ছাত্রী শাহিদা আক্তার জানায়, শাহজাহান, হানিফ, সুলতান ও মাজহারুলের নেতৃত্বে রাত ১২টার দিকে ২০-২৫ জন দেশি অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় তারা দৌড়ে ঘর থেকে বের হয়ে জীবন রক্ষা করে।

ডা. ফখরুজ্জামান বলেন, হামলাকারীরা তাঁর বাড়ির সব কিছু শেষ করে দিয়েছে। সব লুট করে নিয়েছে। তিনি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান। বালিখা ইউপি চেয়ারম্যান মো. রেজাউল করিম দুদু জানান, দীর্ঘদিন ধরে দুই পক্ষের মাঝে জমিসংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। তাঁরা অনেক চেষ্টা করেও মীমাংসা করতে ব্যর্থ হন।তারাকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাহবুবুল হক বলেন, এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 



মন্তব্য