kalerkantho


অভিনব কায়দায় ছিনতাই গ্রেপ্তার ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



অিভিনব কায়দায় ছিনতাইয়ের ঘটনায় দায়ের করা একটি মামলায় কোতোয়ালী থানা পুলিশ চার আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের হেফাজত থেকে ৮৬টি থ্রি-পিস উদ্ধার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার ভোরে নগরের নিউমার্কেট এলাকায় এই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। পরদিন বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে পুলিশ চারজনকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন শাহ আলম (৪০), মো. হাছান (২৫), মো. হাসান (২৫) ও সাথী বেগম (৩৫)। তাদের কাছ থেকে ৮৬ পিস থ্রি-পিস উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন কাপড় ব্যবসায়ী মো. ইলিয়াছ।

ঘটনার বিষয়ে কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহসিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ছিনতাইকারী চক্রটি অভিনব কৌশলে ছিনতাই করে। তারা কখনো কাজির দেউড়ি, কখনো রিয়াজউদ্দিন বাজার বা টেরীবাজার এলাকায় বিচরণ করে। মার্কেট থেকে কোনো লোক মালামাল নিয়ে বের হলে তারা ধারণা করে নেয়, তাদের ব্যাগে মূল্যবান জিনিসপত্র আছে কি না। তার পর কৌশলে ওই লোককে নিজদের রিকশায় তোলে। কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পর রিকশার চাকা নষ্ট কিংবা চালাতে কষ্ট হচ্ছে উল্লেখ করে যাত্রীকে গাড়ি ঠেলতে অনুরোধ করে। এতে যাত্রী সায় দিলে আকস্মিকভাবে সেখানে উপস্থিত হয় আরো দুই-তিনজন। তারা যাত্রীর সঙ্গে ধাক্কা খায় এবং নিজদের ভাঙা মোবাইল ফোন মাটিকে ফেলে দেয়। এরপর যাত্রী মোবাইল ফোন ভেঙেছে দাবি করে ঝগড়া শুরু করে। আর এই সুযোগে রিকশাচালক মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়।

এমন একটি ঘটনা ঘটে গত মঙ্গলবার ভোরে। ওইদিন ভোরে টেরিবাজারের ব্যবসায়ী মো. ইলিয়াস ১০৫টি থ্রি পিস নিয়ে রিয়াজুদ্দিন বাজার থেকে রিকশায় ওঠেন। রিকশাচালক শাহ আলম রিকশা আর টানতে পারছেন না উল্লেখ করে গাড়ি কিছুটা ঠেলা দিতে বললে ইলিয়াস রাজি হন। এই সুযোগে শাহ আলমের সঙ্গীরা এসে ব্যবসায়ী ইলিয়াসের সঙ্গে ধাক্কা খায় এবং মোবাইল ভেঙে যথারীতি ঝগড়া শুরু করে। আর এই সুযোগে মালামালসহ রিকশা নিয়ে পালিয়ে যান শাহ আলম।

এই ঘটনায় ব্যবসায়ী মো. ইলিয়াস কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।



মন্তব্য