kalerkantho


হবিগঞ্জে ভোটের প্রচারে পূজামণ্ডপ পরিদর্শন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



হবিগঞ্জে নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থী এবং মনোনয়নপ্রত্যাশীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন দুর্গাপূজার মণ্ডপ পরিদর্শন করে। এখানে চলছে রীতিমতো প্রতিযোগিতা। কার বহর কত বড় এবং কে বেশি মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন এ নিয়ে চলছে আলোচনা। নেতারা পরিদর্শনে গিয়ে পূজামণ্ডপে অর্থ সহায়তাও প্রদান করছেন। নির্বিঘ্নে পূজা উদ্যাপন সম্পন্ন করার দিকেও নজর রাখছেন তাঁরা।

নির্বাচন সামনে রেখে গত ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আজহায়ও বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় গিয়ে কৌশলে গণসংযোগ চালান। পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন, তোরণ, ঈদ কার্ডের মাধ্যমে সেই সময় প্রচারণা চললে এখন যেতে হচ্ছে সরাসরি। সব পূজামণ্ড থেকেই নিমন্ত্রণ এবং বায়না থাকায় সম্ভাব্য প্রার্থীরা সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ছুটে যান বিভিন্ন মণ্ডপে।

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির প্রতি বছরের ন্যায় এবারও অনেকগুলো পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন। গত তিন দিনে তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকা হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার শতাধিক মণ্ডপ পরিদর্শন করেন। তিনি জানান, প্রতিবছরই তিনি চেষ্টা করেন সব মণ্ডপে না পারেন অন্তত সব এলাকায় যেন যাওয়া যায়।

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ-২ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান বলেন, তাঁর নির্বাচনী এলাকা হাওরাঞ্চল হওয়ায় সব মণ্ডপে যাওয়া সম্ভব হয় না। তবে পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে তিনি প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যস্ত রয়েছেন বলে কালের কণ্ঠকে জানান।

হবিগঞ্জ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র জি কে গউছ পৌর এলাকার সব মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন।

হবিগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী নিজামুল হক রানা সাইকেলের শোডাউন করে মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন। এ আসনে অন্য মনোনয়নপ্রত্যাশীরাও মণ্ডপ পরিদর্শন ও অর্থ সহায়তা করেছেন বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মনোনয়নপ্রত্যাশীরা শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে এলাকায় অবস্থান করছেন এবং কৌশলে অনুষ্ঠানে যোগদানের মধ্য দিয়ে প্রচার চালাচ্ছেন। দুর্গাপূজা যাতে সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয় সেদিকেও খেয়াল রাখছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। খোঁজখবর নিচ্ছেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের। প্রয়োজনে আর্থিক সহযোগিতার হাতও বাড়িয়ে দিচ্ছেন অনেকে।



মন্তব্য