kalerkantho


পেশাজীবীদের সঙ্গে মতবিনিময়

বিএনপি-জামায়াতকে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না : নাসিম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতকে মাঠে-ময়দানে প্রতিহত করা হবে। কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না। যেকোনো মূল্যে তাদের ষড়যন্ত্রের জবাব দেওয়া হবে। নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিজয়ের বিকল্প নেই।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) কার্যালয়ে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পেশাজীবী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে ১৪ দলের মতবিনিময়সভা শেষে এসব কথা বলেন মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে জনগণ তাদের রায় দেবে। এই মাস থেকে দেশের জেলা-উপজেলায় ১৪ দলের উদ্যোগে যে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে সেখানে বিএনপি-জামায়াত ও যুক্তফ্রন্টের নেতাদের মুখোশ উন্মোচন করা হবে।

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেননের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময়সভায় আরো বক্তব্য দেন জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী এমপি ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান এমপি।

পেশাজীবী সংগঠনের নেতাদের মধ্যে সভায় বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, জাতীয় প্রেস ক্লাব সভাপতি মোহাম্মদ শফিকুর রহমান, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান, ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউশন অব বাংলাদেশের (আইইবি) সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব শাবান মাহমুদ ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী।

মতবিনিময়সভায় রাশেদ খান মেনন বলেন, সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতা নেওয়ার পর ড. কামাল হোসেন তাদের সঙ্গে চলে যান এবং অনির্ধারিত সময় যে ওই সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারে তার সাংবিধানিক ব্যাখ্যা দেন।

হাসানুল হক ইনু বলেন, সংখ্যালঘু, সংস্কৃতিকর্মী ও সব শ্রেণি-পেশার মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে আগামী ডিসেম্বর মাসের মহাপরীক্ষার নির্বাচনে বিজয়ী হতে হবে।

শাজাহান খান বলেন, যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের ঐক্য জাতির জন্য হুমকি। আগামী অক্টোবরের পর বিএনপি-জামায়াত নির্বাচন বানচাল করতে নাশকতার যে ষড়যন্ত্র করেছে তা প্রতিহত করতে পাল্টা পরিকল্পনা থাকতে হবে এবং সে অনুযায়ী তা বাস্তবায়ন করতে হবে।

শাহরিয়ার কবির বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে নিয়ে কখনো ইনক্লুসিভ নির্বাচন হতে পারে না। কারণ জাতীয় ঐক্য হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির সঙ্গে স্বাধীনতাবিরোধীদের ঐক্য হতে পারে না।



মন্তব্য