kalerkantho


ইউএনওর হস্তক্ষেপ

কাঁঠালিয়ায় বন্ধ ছাত্রীর বাল্যবিয়ে

ঝালকাঠি ও কাঁঠালিয়া প্রতিনিধি   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আকন্দ মোহম্মদ ফয়সাল উদ্দীনের হস্তক্ষেপে এসএসসি পরীক্ষার্থীর বাল্যবিয়ে বন্ধ হয়ে গেছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার লতাবুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, লতাবুনিয়া গ্রামের সালাম হাওলাদারের ছেলে সোহাগ হোসেনের সঙ্গে স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থীর (১৫) বাল্যবিয়ের আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি চলছিল। বিষয়টি স্থানীয় লোকজন ইউএনওকে জানায়। তিনি উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আনোয়ারা বেগমকে ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। পরে মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা বর-কনেসহ উভয় পক্ষকে ইউএনও কার্যালয়ে নিয়ে যান। পরে ইউএনও তাদের বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেন। বাল্যবিয়ে দেবে না, এ মর্মে বর ও কনেপক্ষ ইউএনওর সামনে মুচলেকা দেয়। কাঁঠালিয়ার ইউএনও আকন্দ মোহম্মদ ফয়সাল উদ্দীন বলেন, কাঁঠালিয়ায় কোনো বাল্যবিয়ে হতে দেওয়া হবে না।

বদরগঞ্জে বাল্যবিয়ের প্রস্তুতি, কাজি গ্রেপ্তার

এদিকে রংপুর থেকে আমাদের আঞ্চলিক প্রতিনিধি জানান, বদরগঞ্জে বাল্যবিয়ে পড়ানোর প্রস্তুতির সময় শফিকুল ইসলাম (৩৭) নামের এক নিকাহ রেজিস্ট্রারকে (কাজি) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শফিকুল ইসলামের বাড়ি উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের গড়ডাঙ্গী গ্রামে। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের বুজরুক হাজীপুর মৃধাপাড়া এলাকায় বাল্যবিয়ে দেওয়ার সময় প্রথমে তাঁকে আটক করা হয়। গতকাল তাঁকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সিলেটে বাল্যবিয়েকে লাল কার্ড

এদিকে সিলেট অফিস জানায়, বাল্যবিবাহ বন্ধ এবং একে রুখে দেওয়ার অঙ্গীকার করেছে সিলেটের প্রায় দুই হাজার স্কুল শিক্ষার্থী। সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে তারা বাল্যবিবাহকে ‘না’ বলার পাশাপাশি লাল কার্ডও দেখিয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে সিলেট সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ প্রাঙ্গণে এই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।



মন্তব্য