kalerkantho


সরকারকে ফখরুল

খালেদাকে মুক্তি দিয়ে নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে নির্বাচনের ক্ষেত্র তৈরির আহ্বান জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, যে নির্বাচনে কথা বলার সুযোগ থাকবে না, ক্যাম্পেইনের সুযোগ থাকবে না, ভোট দেওয়ার সুযোগ থাকবে না—সেটি কোনো নির্বাচন হবে না।

গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক মতবিনিময় সভায় মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম। সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সহসভাপতি মুফতি আবদুর রব ইউসুফী।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার সারা দেশে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ভৌতিক মামলা দিয়ে চলেছে। ১ সেপ্টেম্বর থেকে সাড়ে চার হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট অংশ নিলে তাদের অস্তিত্ব থাকবে না—এই ভয়ে গ্রাম্য মাতবরের মতো মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরোধী দলকে ঠেকিয়ে রাখার কৌশল নিয়েছে তারা।

সরকারকে উদ্দেশ করে বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, বর্তমানে নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। ভোটের পরিবেশ তৈরি করতে সব রাজনৈতিক নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করুন, সংসদ ভেঙে দিয়ে পদত্যাগ করুন। নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকার গঠন করুন। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করুন। তিনি বলেন, নির্বাচনে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে অবশ্যই সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। সব দলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। ইভিএম চলবে না।

সরকারবিরোধী সব শক্তিকে এক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার আগেই জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়ে গেছেন। আসুন, সেই লক্ষ্যে শুধু ২০ দল নয়, সব রাজনৈতিক দল ও সংগঠন একত্র হয়ে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে এই সরকারকে বাধ্য করি।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই মামলায় পর পর তিনজন তদন্ত কর্মকর্তা বদলি হয়েছেন। এর মধ্যে ফখরুদ্দিন-মইনুদ্দিনের শাসনকাল গেছে দুই বছর। তাঁরাও তারেক রহমান ও আবদুস সালাম পিন্টুর নাম দেননি। নামগুলো পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগ আমলে জুড়ে দেওয়া হয়েছে।

 

 



মন্তব্য