kalerkantho


নির্বাচনী হাওয়ায় দ্বন্দ্ব ভুলে ঐক্যের কাউন্সিল

নীলফামারী জাপার সভাপতি শওকত, সা. সম্পাদক পারভেজ

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



নীলফামারীতে জেলা জাতীয় পার্টির (এরশাদ) কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। নেতৃত্ব নিয়ে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়া জাতীয় পার্টির এ শাখায় এবার নির্বাচনী হাওয়ায় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে ঐক্যবদ্ধভাবে। গতকাল সোমবার জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সকাল থেকে দিনব্যাপী কাউন্সিল অনুষ্ঠানের পর বিকেলে ওই দুই গ্রুপের সমন্বয়ে কমিটির ১০১ সদস্যের মধ্যে ছয়জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

দলীয় সূত্র জানায়, ওই ছয়জনের মধ্যে নীলফামারী-৪ (কিশোরগঞ্জ-সৈয়দপুর) আসনের সংসদ সদস্য বিরোধীদলীয় হুইপ শওকত চৌধুরীকে সভাপতি, জেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্যসচিব সাজ্জাদ পারভেজকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। আর সহসভাপতি করা হয়েছে শওকত চৌধুরীর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী। ছয়জনের বাকি তিনজন হলেন সহসভাপতি কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম ও সহসভাপতি নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য কাজী ফারুক কাদের। শ্রমিক নেতা বজলার রহমানকে সাংঠনিক সম্পাদকের পদে রাখা হয়েছে।

সূত্রমতে, জেলা জাতীয় পার্টির সর্বশেষ দ্বিবার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ৬ মার্চ। কিন্তু আগেই জেলা জাতীয় পার্টি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। একটি গ্রুপের নেতৃত্বে ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য শিল্পপতি জাফর ইকবাল সিদ্দিকী। অন্যটির নেতৃত্বে ছিলেন শওকত চৌধুরী। সেদিন দুই গ্রুপ পৃথক স্থানে সম্মেলন করেছিল, যাতে দুটি অনুষ্ঠানেই প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। পরে কেন্দ্র থেকে জাফর ইকবাল সিদ্দিকীকে সভাপতি, হুইপ শওকত চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা জাপার কমিটি ঘোষণা করলেও দ্বন্দ্বের অবসান হয়নি। এ অবস্থায় এক বছরের মাথায় কমিটি ভেঙে দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি করা হয়।

গতকাল অনুষ্ঠিত সম্মেলনের প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও দলের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাফিজার রহমান। বিদায়ী আহ্বায়ক কমিটির প্রধান বিরোধীদলীয় হুইপ শওকত চৌধুরীর সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম ইয়াসির, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, কাজী ফারুক কাদেরসহ সিনিয়র নেতারা।



মন্তব্য