kalerkantho


বাংলাদেশের প্রথম সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল

বিএসএমএমইউতে আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অধীন ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হতে যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় চিকিৎসা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বৃহস্পতিবার এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন বলে কর্মসূচি রয়েছে।

গত মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, প্রথম দফা দুটি বেজমেন্টসহ ১১ তলা হাসপাতাল ভবন নির্মাণ করা হবে। পরে দুই তলা বাড়ানো হবে। ১৩ তলা হাসপাতাল ভবনটিতে থাকবে এক হাজার শয্যা। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ প্রবেশ করছে সেন্টার বেইজড হাসপাতালের যুগে। সিঙ্গাপুর, কোরিয়াসহ বিশ্বের অধিকাংশ উন্নত দেশে সেন্টার বেইজড চিকিৎসাসেবা পদ্ধতি চালু আছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএসএমএমইউর ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া জানান, এখানে প্রতিদিন বহির্বিভাগে সেবা নিতে পারবে প্রায় চার হাজার রোগী। আন্তবিভাগে প্রতি বছর প্রায় ২২ হাজার রোগী চিকিৎসাসেবা পাবে। এ লক্ষ্যে ৮০ জন চিকিৎসক, ৩০ জন নার্স ও ১০ জন কর্মকর্তাকে কোরিয়ায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

প্রথম দফায় এ হাসপাতালে স্পেশালাইজড অটিজম সেন্টারসহ ম্যাটারনাল অ্যান্ড চাইল্ড হেলথ কেয়ার সেন্টার, ইমার্জেন্সি মেডিক্যাল কেয়ার সেন্টার, হেপাটোবিলিয়ারি ও গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি সেন্টার, কার্ডিও ও সেরিব্রো ভাসকুলার সেন্টার, কিডনি সেন্টার এবং দ্বিতীয় দফায় রেসপিরেটরি মেডিসিন সেন্টার, জেনারেল সার্জারি সেন্টার, অফথালমোলজি, ডেন্টিস্ট্রি, ডার্মাটোলজি সেন্টার,  ফিজিক্যাল মেডিসিন, রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারসহ আরো কিছু বিভাগ গড়ে তোলা হবে।

ভিসি জানান, ১৯৯৬ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করার পর ১৯৯৮ সালের ৩০ এপ্রিল সাবেক আইপিজিএমআরকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হয়। পরে ২০০৮ সালে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণের পর এই বিশ্ববিদ্যালয়কে সেন্টার অব এক্সিলেন্সে পরিণত করার উদ্যোগ নেন। সে অনুসারে ২০১২ সালে বর্তমান হাসপাতালের উত্তর পাশে ৩.৮ একর (প্রায় ১২ বিঘা) জমির ওপর দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের সহযোগিতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের উদ্যোগ নেন।

 



মন্তব্য