kalerkantho


চুরি করতে গিয়ে ধরা, গণপিটুনিতে দুজন নিহত

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



রাউজানের পাহাড়তলী ইউনিয়নের ঊনসত্তরপাড়া গ্রামে চুরি করতে এসে ধরা পড়ে জনতার পিটুনিতে দুজন নিহত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ভোরে নিজেদের বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে চুরি করতে এসে গণপিটুনির শিকার হয় ওই দুজন। তাদের কাছ থেকে একটি রিভলভার ও একটি দেশি পাইপগান উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতরা হলো একই ইউনিয়নের খানপাড়ার মো. মোক্তার ও সাইফুল ইসলাম।

পাহাড়তলী ইউপির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আমীর হোসেন জানান, মোক্তার, সাইফুলসহ চার-পাঁচজন গতকাল ভোরে ঊনসত্তরপাড়া ভুপোল চৌধুরী বাড়ির শ্যামল দাশের ঘরে ঢুকে দুটি মোবাইল ফোনসেট চুরি করে। পরে তারা পার্শ্ববর্তী সিরাজ কলোনির ভাড়াটিয়া ব্যবসায়ী শাহ আলম ও পাশের বাসিন্দা আদিনাথ দাশের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে। ওই সময় ভুপোল চৌধুরী বাড়ির লোকজন ‘চোর চোর’ বলে চিৎকার শুরু করে। শাহ আলম ও আদিনাথ দাশের পরিবারের সদস্যরাও চিৎকার করে। একপর্যায়ে আশপাশের এলাকা থেকে লোকজন এসে ঘেরাও করে দুই চোরকে আটক করে। অন্য কয়েকজন পালিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শতাধিক লোক দুই চোরকে ধরে লাঠিসোঁটা দিয়ে মারতে মারতে পার্শ্ববর্তী ৩ নম্বর ওয়ার্ডের গৌরশংকর হাটে নিয়ে যায়। সেখানে বাজার শেডের পিলারের সঙ্গে বেঁধে দুজনকে আরো কয়েক দফা পিটুনি দেওয়া হয়। কেউ কেউ তাদের চোখে মরিচের গুঁড়াও দিয়েছে। মোক্তারের চুলও কেটে দেয় কয়েকজন। পরে ঘটনাস্থলে তাদের মৃত্যু হয়।

বাজারের ইত্যাদি স্টোরের স্বত্বাধিকারী রতন বণিক বলেন, ‘সকাল ৭টায় দোকানে এসে দেখি টানাহেঁচড়া করে শখানেক মানুষ দুই চোরকে গৌরশংকর হাটে নিয়ে আসে। এরপর দুই চোরকে মারা যাওয়া অবস্থায় দেখি।’

পাহাড়তলী ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য কামরুল ইসলাম বলেন, ‘শুক্রবার ভোর ৪টার পর ঊনসত্তরপাড়া ভুপোল চৌধুরী বাড়ির এক ছেলে আমাকে ফোন করে বলে, ‘আমাদের এখানে চোর ঢুকেছে, আমরা দুজনকে ধরে ফেলেছি। তখন আমি তাকে বলি, ধৃতদের বেঁধে পুলিশকে খবর দেন। এরপর শুনি, দুই চোরকে গৌরশংকর হাটে নিয়ে গেছে। এরপর বাজারে এসে দেখি দুজনের মৃতদেহ বাজার শেডের পাকা পিলারের সঙ্গে বাঁধা অবস্থায় পড়ে আছে। পরে থানা পুলিশকে খবর দিই।’

সকাল সাড়ে ১১টার দিকে থানা থেকে পুলিশ আসে। দুপুর ১২টার পর আসেন থানার ওসি কেফায়েত উল্লাহ। তিনি জানান, বাজার শেডের পিলারের সঙ্গে বাঁধা অবস্থা থেকে উদ্ধারের পর মোক্তারের পেছনে কোমর থেকে একটি রিভলভার ও সাইফুলের কোমর থেকে দেশি পাইপগান পাওয়া গেছে।

ওসি বলেন, ‘সাইফুলের বিরুদ্ধে ইয়াবা, চুরি, মারামারিসহ দুটি এবং মোক্তারের বিরুদ্ধে একটি চুরির মামলার খোঁজ পেয়েছি। এর মধ্যে সাইফুল দুইবার, মোক্তার একবার জেলও খেটেছে বলে প্রাথমিকভাবে তথ্য পেয়েছি।’

এদিকে নিহত দুজনের পরিবারের কেউ ঘটনাস্থলে যায়নি। থানার এসআই মহসিন রেজা বলেন, ‘নিহতদের পরিবারের কেউ রাত ৮টা পর্যন্ত পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।’

 

 



মন্তব্য