kalerkantho


রবীন্দ্রনাথ ও নজরুল স্মরণে সংগীতানুষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



রবীন্দ্রনাথ ও নজরুল স্মরণে সংগীতানুষ্ঠান

ছায়ানট মিলনায়তনে গতকাল আয়োজন করা হয় নজরুল স্মরণ সংগীতানুষ্ঠান। ছবি : কালের কণ্ঠ

বাংলা সাহিত্যের দুই প্রাণপুরুষ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। মহান দুই স্রষ্টার সৃষ্টি বাংলা সাহিত্যকে যেমন সমৃদ্ধ করেছে, তেমনি প্রাণিত করেছে বাঙালি জাতিকে।

গত ২২ শ্রাবণ ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং ১২ ভাদ্র ছিল জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রয়াণ দিবস। এ উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে দুই কবির স্মরণে সংগীতানুষ্ঠান করেছে দুটি সংগঠন। তাঁদেরই কবিতায় ও গানে, তাঁদেরই সৃষ্টির আলোতে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানানো হয় দুই কবির প্রতি।

জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংস্থার আয়োজন ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নিয়ে। ছায়ানট মিলনায়তনে ছায়ানটের উদ্যোগে হয়েছে নজরুল স্মরণ সংগীতানুষ্ঠান।

রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংস্থার আয়োজনের মূল প্রতিপাদ্য ছিল—‘অহংকার চূর্ণ করো/প্রেমে মন পূর্ণ করো’। দুই দিনের এই স্মরণ সংগীতানুষ্ঠান সাজানো হয়েছে রবীন্দ্রনাথের গীতবিতান থেকে নির্বাচিত পূজা, প্রেম, প্রকৃতি, স্বদেশ ও বিচিত্র পর্যায়ের শতাধিক গান দিয়ে। সংস্থার ৮০ জন শিল্পীর পাশাপাশি আমন্ত্রিত শিল্পীরাও একক ও দ্বৈত পরিবেশনায় অংশ নেন।

গতকাল সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানের সূচনা হয় সংস্থার শিল্পীদের কণ্ঠে ‘সকাতরে ওই কাঁদিছে সকলে’ ও ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’—পর পর দুটি কোরাসের মধ্য দিয়ে। এরপর ছিল একক পরিবেশনা। একক কণ্ঠে সংগীত পরিবেশন করেন আসিফুল বারী, অনিন্দিতা রায়, লিটন চন্দ্র বৈদ্য, সেমন্তি মঞ্জরী, আজিজুর রহমান তুহিন, আবদুল ওয়াদুদ, আবদুর রশিদ, জয়ন্ত আচার্য্য, প্রমোদ দত্ত, মামুন জাহিদ খান, অনুশ্রী ভট্টাচার্য, বুলা মাহমুদ, ছায়া কর্মকার, আমিনা আহমেদ প্রমুখ।

আজ শনিবার সমাপনী দিনের অনুষ্ঠান শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায়। এদিনও একই মঞ্চে গান পরিবেশন করবেন দেশের প্রবীণ-নবীন শিল্পীরা। অনুষ্ঠান সবার জন্য উন্মুক্ত।

ছায়ানট মিলনায়তনে বিদ্রোহী কবির গান ও কবিতার বর্ণিল আয়োজনে অংশ নেন ছায়ানটের শিল্পীরা। শুরুতেই বড়দের দল গেয়ে শোনায় ‘শুভ্র সমুজ্জ্বল হে চির-নির্মল’। এক পরিবেশনায় ছিলেন তানভীর আহমেদ, নাসিমা শাহীন ফেন্সি, মনীষ সরকার, নুসরাত জাহান রুনা, রেজাউল করিম, নাহিয়ান দুরদানা শুচি, প্রিয়ন্তু দেব, ফারহানা আক্তার শ্যার্লি, জান্নাত-ই-ফেরদৌসী লাকী, সৈয়দা সনজিদা জোহরা বীথিকা, শ্রাবন্তী ধর, সুমন মজুমদার। একক আবৃত্তিতে অংশ নেন কৃষ্টি হেফাজ ও রফিকুল ইসলাম। সবশেষে মঞ্চে আসে ছায়ানটের ছোটদের দল। কচিকণ্ঠে তারা গেয়ে শোনায় ‘স্নিগ্ধ শ্যাম-বেণী-বর্ণা এসো’ ও ‘সবুজ শোভার ঢেউ খেলে যায়’ গান দুটি। ছায়ানটের রীতি অনুযায়ী জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় এ আয়োজন।

 

 



মন্তব্য