kalerkantho


ঝোপের ভেতর নবজাতক

কুমিল্লা (দক্ষিণ) প্রতিনিধি   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



পিঁপড়া ও পোকামাকড়ের কামড়ে হাত-পা রক্তাক্ত। নাকে স্কচ টেপ লাগানো। পড়ে ছিল সড়কের পাশে ঝোপের ভেতর। এমন অবস্থায় এবং অনিরাপদ স্থানে যাকে পাওয়া গেছে সে এক নবজাতক, কন্যাশিশু। কান্নার আওয়াজ শুনে এক পথচারী নবজাতকটিকে উদ্ধারের উদ্যোগ নেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার ভাটিয়াভিটা গ্রামে পাওয়া গেছে এই নবজাতককে।

এরপর শিশুটিকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ায় হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে পাঠিয়েছেন কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। স্থানীয় সূত্র জানায়, ভাটিয়াভিটা এলাকার বাসিন্দা জাকির হোসেন গতকাল সকালে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়ক ধরে লাকসাম বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে একটি ঝোপের কাছে শিশুর কান্নার আওয়ার শুনে থমকে দাঁড়ান তিনি। ঝোপের ভেতর উঁকি দিয়ে নবজাতককে দেখে আশপাশের লোকজনকে ডেকে আনেন।

জাকির বলছিলেন, ‘হঠাৎ করে শিশুটির কান্নার শব্দ শুনে আমি একটু ভয় পেয়ে যাই। পরে আমার ভাইকে ডেকে এনে রাস্তার পাশের ঝোপের ভেতর গিয়ে শিশুটিকে দেখতে পাই। এ সময় ওই শিশুটির নাকে স্কচ টেপ এবং শিশুটির হাতে-পায়ে পিঁপড়া ও পোকামাকড়ের কামড়ের রক্তাক্ত চিহ্ন ছিল। আমাদের ধারণা, রাতের আঁধারে কে বা কারা সদ্যোভূমিষ্ঠ ওই কন্যাশিশুটিকে ঝোপের ভেতর ফেলে রেখে গেছে।’

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. ইসরাত জাহান বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

 



মন্তব্য