kalerkantho


শার্শায় স্কুল দপ্তরির বিরুদ্ধে ছাত্রী নিপীড়নের অভিযোগ

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা ইউনিয়নে একটি স্কুলের দপ্তরির বিরুদ্ধে ছাত্রী নিপীড়নের অভিযোগ মিলেছে। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা হয়েছিল। অভিভাবকদের আপত্তির মুখে গতকাল বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ দাখিল হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আমলাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী ইকরামুল হক বিভিন্ন সময়ে ছাত্রীদের যৌন নিপীড়নসহ হয়রানি করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। স্কুলে সততা স্টোর নামের দোকান রয়েছে। সেখানে গত ২৯ আগস্ট পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী মিষ্টি কিনতে গেলে ইকরামুল তাকে জাপটে ধরেন। ঘটনা জানাজানি হলে স্কুল পরিচালনা পর্ষদের কয়েকজন ও শিক্ষকরা ইকরামুলকে ডেকে ছাত্রীর কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। তবে আপত্তি করেন কয়েকজন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা। এ অবস্থায় ঘটনা মীমাংসায় ইউপি চেয়ারম্যান গতকাল বৈঠকে বসবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক কাবিনুর রহমান বলেন, বিষয়টি নিয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বুধবার স্কুলের পরিচালনা পর্ষদের সভা ডাকা হয়েছিল। কিন্তু স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনাটি মীমাংসা করে দেবেন বলায় সভা হয়নি।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য শামসুজ্জামান বুলু বলেন, ‘দপ্তরি ইকরামুলের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে টানাটানির বিষয় শুনে আমরা স্কুলে বসে মীমাংসা করেছিলাম। কিন্তু শিক্ষকদের মতবিরোধের কারণে এ নিয়ে আন্দোলন হচ্ছে। এখন থানায় অভিযোগ করায় আমাদের কিছুই করার নেই।’

গোগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুর রশীদ বলেন, ‘আমার কাছে অভিযোগ আসলে মেয়ের বাবাকে খবর দিয়েছিলাম। সত্য-মিথ্যা যাচাই করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের কথা ছিল। এখন থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে শুনেছি।’

শার্শা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ আব্দুর রব বলেন, ‘ঘটনাটি প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে শুনেছি। তদন্তে অপরাধ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শার্শা থানার ওসি এম মশিউর রহমান বলেন, ‘ছাত্রীর পিতার লিখিত একটি অভিযোগ পেয়েছি বৃহস্পতিবার সকালে।’

 

 



মন্তব্য