kalerkantho


ক্যামেরা ট্রায়াল নয় : আইনমন্ত্রী

‘খালেদার নিরাপত্তা দিতেই কারাগারে আদালত স্থাপন’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই আদালত কারাগারে বসানো হয়েছে; এটা ক্যামেরা ট্রায়াল নয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে দৈনিক সমকাল কার্যালয়ে আয়োজিত ‘সমতলের ক্ষুদ্র জাতিসত্তা ও দলিত জনগোষ্ঠীর অধিকার সুরক্ষা : প্রাতিষ্ঠানিক নীতি কাঠামোর দাবি’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন মন্ত্রী। হেকস/ইপার বাংলাদেশ, ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেড এবং দৈনিক সমকাল এ বৈঠকের আয়োজন করে।

আইনমন্ত্রী বলেন, একটি কথা উঠেছে, এটি ক্যামেরা ট্রায়াল। যে প্রজ্ঞাপনটি জারি করা হয়েছে, সেই প্রজ্ঞাপনের মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারির কারণ স্পষ্ট করে বলা আছে। তিনি বলেন, ক্যামেরা ট্রায়ালের সংজ্ঞা হচ্ছে—যেখানে কাউকে, কোনো পাবলিক বা মিডিয়াকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। যেখানে শুধু বিচারক, আসামি আর প্রয়োজন হলে তার আইনজীবীকে রাখা হয়। এমনকি তার কোনো তথ্যাদি প্রকাশও করা যাবে না।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জানেন, গত সাত মাস যাবৎ এই কোর্টটা বসছে। এই সাত মাসে মূল আসামি কোর্টে হাজিরা দিচ্ছেন না। নিরাপত্তাজনিত কারণে বা অন্য কোনো কারণে তিনি যখন হাজিরা দিচ্ছেন না, তখন সেটির সুবিধার্থে নিরাপত্তা আরো সুনিশ্চিত করার জন্য সেখানে কোর্ট বসানো হয়েছে।’

নিজেদের নির্দোষ প্রমাণ করার চেষ্টা না করে বিচার কিভাবে বয়কট করা যায়, বিএনপির আইনজীবীরা সেই চেষ্টাই করছেন—এমন মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘এতে শুধু এটাই প্রমাণিত হয়, তাঁরা নিজেরা নিজেদের দোষী সাব্যস্ত করছেন। সেই কারণে তাঁরা বিচারের সম্মুখীন হতে চান না।’

 



মন্তব্য