kalerkantho


টাঙ্গাইলে বাসে ধর্ষণ

প্রতিবন্ধী ওই নারীর পরিবারের সন্ধান চালক বাড়িছাড়া

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের পাথাইলকান্দি বাসস্ট্যান্ডে বাসে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী নারীর পরিচয় পাওয়া গেছে। এদিকে বাসের চালক আলম খন্দকার বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে। যে বাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে সেটি করা পুলিশ জব্দ করে থানায় নিয়ে রেখেছে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ওসি মোশারফ হোসেন কালের কণ্ঠকে জানান, বাসে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী নারীর পরিবারের সন্ধান পেতে তার ছবি ও তথ্য বিভিন্ন থানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। গতকাল রবিবার রাজধানী ঢাকার খিলগাঁও থানার মাধ্যমে প্রতিবন্ধী নারীর ভাই বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানায় এসে জানান, তাঁর বোন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। সে গত ২৩ আগস্ট খিলগাঁওয়ের বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে পরদিন খিলগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। শনিবার রাতে খিলগাঁও থানা পুলিশের মাধ্যমে তাঁরা বোনের সন্ধান পান এবং তাকে নিতে গতকাল বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানায় আসেন।

ওসি আরো জানান, আদালতের নির্দেশে ওই নারীকে গাজীপুরের পুবাইলে সরকারি মহিলা আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। আদালতের নির্দেশ পেলে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এদিকে প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলার আসামি বাসচালক আলম খন্দকারকে গ্রেপ্তার করতে তার বাড়িতে অভিযান চালানো হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। কিন্তু তিনি ঘটনার পরপরই বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছেন। তাকে গ্রেপ্তার করতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানান ওসি।

বৃহস্পতিবার রাতে টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি বাস যাত্রী নিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপারে পাথাইলকান্দি বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে। সব যাত্রী নেমে যাওয়ার পর রাত সাড়ে ১২টার দিকে প্রতিবন্ধী ওই নারীকে ধর্ষণ করা হয়। তার চিৎকারে স্থানীয় বাজারের পাহারাদার এগিয়ে গিয়ে ঘটনাটি দেখতে পান। তিনি মহাসড়কে টহলরত পুলিশকে জানালে পুলিশ বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে হেলপার নাজমুলকে গ্রেপ্তার করে। চালক পালিয়ে যায়। শুক্রবার নাজমুলকে আদালতে হাজির করা হলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

 



মন্তব্য