kalerkantho


ধামরাইয়ে শোক দিবসের দুই অনুষ্ঠান

বর্তমান ও সাবেক এমপির সময় গেল বিষোদগারেই

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকার ধামরাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দুটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে সেখানকার বর্তমান ও সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) পরস্পরের বিরুদ্ধে বিষোদগারে সময় পার করেছেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে আয়োজিত দুটি আলাদা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দানকালে তাঁরা পরস্পরের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়েন।

কালামপুর বাজার সমিতি ও আঞ্চলিক আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন গতকাল আতাউর রহমান খান কলেজ মাঠে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠান করে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বর্তমান এমপি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মালেক। একই দিন কুশুরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আরেকটি অনুষ্ঠান হয় এবং এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক এমপি ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজীর আহমদ।

কালামপুর মাঠে বক্তব্যকালে এম এ মালেকসহ অন্য বক্তারা অভিযোগ করেন, বেনজীর আহমদ এমপি থাকাকালে মানুষের জমি দখল করেছেন এবং চাকরি দেওয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। গেল স্থানীয় নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেওয়ার কথা বলে তিনি লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন অভিযোগ করে তাঁর কাছ থেকে দূরে থাকতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান এম এ মালেক।

অপরদিকে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বেনজীর আহমদ ও তাঁর সমর্থকরা বলেন, এম এ মালেক ও তাঁর স্বজনরা বিভিন্ন ব্যক্তির জমি দখল করেছেন, বিভিন্ন কারখানায় চাঁদাবাজি করেছেন, ভিপি সম্পত্তি আত্মীয়দের নামে লিজ নিয়ে প্লট আকারে বিক্রি করেছেন, হিন্দুদের জমি দখল করে নিয়েছেন, বিভিন্ন কারখানায় ঝুট ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছেন।

এম এ মালেকের পাশাপাশি বক্তব্য দানকারী অন্যদের মধ্যে ছিলেন কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লায়ন মিনা মালেক, সিআইপি আহম্মদ আল জামান, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কৃষি বিষয়ক সম্পাদক শফিক আনোয়ার গুলশান, ঢাকা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার আবু সাইদ, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক দেওয়ান আলাল, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য খায়রুল ইসলাম, সদস্য মাহতাব আলম, উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল গনি, পৌর যুবলীগের সভাপতি আমিনুর রহমান প্রমুখ।

বেনজীর আহমদের মঞ্চে বক্তব্য দেন সাবেক রাষ্ট্রদূত সোহরাব হোসেন, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আবুল কাশেম রতন, সহসভাপতি কাজী শওকত হোসেন শাহীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বাইশাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, প্রচার সম্পাদক এনামুল হক আইয়ুব, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন সাকু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সানোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খালেদ মাসুদ লাল্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সুয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান সোহরাব, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহম্মদ হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র গোলাম কবির, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্যানেল মেয়র শহিদুল্লাহ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাদ্দেস হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ শুকরানা, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সানাউল হক সুজন প্রমুখ।



মন্তব্য