kalerkantho


ঈদের ছুটিতে কঠোর নিরাপত্তাবলয়

আবাসিক ভবন ও মার্কেটের সিসি ক্যামেরা সচল রাখার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



ঈদুল আজহার ছুটির সময় দেশবাসী যেন নিরাপদে থাকতে পারে সে জন্য বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরই মধ্যে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিরাপত্তার ছক এঁকেছে পুলিশ ও র‌্যাব। কঠোর নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে। চিহ্নিত সন্ত্রাসী, তালিকাভুক্ত ছিনতাইকারী, মলম পার্টির সদস্য, চোর-ডাকাতসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধীকে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ ও র‌্যাবের বিশেষ টিম। বিপণিবিতান ও বহুতল ভবনের সার্বক্ষণিক ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা সচল রাখার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। মার্কেট ও বাসাবাড়ির সিকিউরিটি গার্ডদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণে রাখতে বলা হয়েছে। কোনো মহল যাতে কোনো ধরনের অপতৎপরতা চালাতে না পারে সেদিকেও বিশেষ নজর দিয়েছে পুলিশ-র‌্যাব।

এ প্রসঙ্গে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী কালের কণ্ঠকে বলেন, ঈদের ছুটিতে কঠোর নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে। সব ধরনের ঝুঁকির বিষয় মাথায় রেখেই নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। শান্ত দেশকে কেউ অশান্ত করার চেষ্টা করলে কঠোরভাবে দমন করা হবে। তিনি বলেন, ‘ঈদুল আজহায় আমাদের দুটি চ্যালেঞ্জ। এর একটি কোরবানির পশু, অন্যটি ঘরে ফেরা মানুষের যাত্রা নিরাপদ করা। এ সময় প্রায় এক কোটি মানুষ ঢাকা ছেড়ে যায়। তাদের কেউ বাসে, ট্রেনে বা লঞ্চযোগে ঢাকা ছাড়ে। আমরা সবার নিরাপত্তার জন্য কাজ করছি।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ঈদুল আজহায় রাজধানীতে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাসাবাড়ি, রেলস্টেশন, বাসস্ট্যান্ড, লঞ্চ টার্মিনাল ও মার্কেট এলাকায় এরই মধ্যে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। পশুর চামড়া কেনাবেচা নিয়ে যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে বিশেষ নজর দেওয়া হবে। মার্কেট ও আবাসিক ভবনের সিসি ক্যামেরা সার্বক্ষণিক সচল রাখতে হবে। সন্ত্রাসীদের ধরতে পুলিশি অভিযান বাড়ানো হবে।’ তিনি আরো বলেন, ঈদুল আজহার প্রধান জামাতকে কেন্দ্র করে জাতীয় ঈদগাহে সুনির্দিষ্ট পাঁচ স্তরবিশিষ্ট নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এই নিরাপত্তাব্যবস্থায় পোশাকধারী পুলিশ, ডিবি, সোয়াত, সিটিটিসি ইউনিট ও র‌্যাব সদস্যরা নিয়োজিত থাকবেন।

 



মন্তব্য