kalerkantho


যানজটমুক্ত নিরাপদ সড়ক

আইনি পদক্ষেপ গ্রহণে রাজউককে কঠোর নির্দেশ

বাস্তবায়ন করা না হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে

ফারজানা লাবনী   

২০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



অনুমোদিত পরিকল্পনা লঙ্ঘন করে নির্মিত ভবনের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণে রাজউককে কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিশেষভাবে অনুমোদনের সময়ে পর্যাপ্ত পার্কিং দেখিয়ে পরবর্তীকালে পার্কিং জোন সীমিত করেছে—এমন বহুতল ভবন ও শপিং মলের বিষয়ে দ্রুত আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বলা হয়েছে। 

গতকাল রবিবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যানজটমুক্ত নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করা সম্পর্কিত এক উচ্চপর্যায়ের সভা থেকে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান এতে সভাপতিত্ব করেন। নির্দেশ বাস্তবায়ন করা না হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আজ রবিবার (গতকাল) নিরাপদ সড়ক ও মহাসড়কের শৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তাদের কর্মপরিকল্পনা জমা দিয়েছে। এ কর্মপরিকল্পনার ভিত্তিতে করণীয় সম্পর্কে যথাশিগগির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর পুলিশ তাদের পরিকল্পনায় কঠোরভাবে আইনের প্রয়োগ করা এবং ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) তাদের কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি চিহ্নিত করা শুরু করেছে। এ ছাড়া চালকের দক্ষতাসহ অন্যান্য বিষয়েও কাজ শুরু করেছে বলে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবকে সংস্থার প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন। বিআরটিএ কর্মপরিকল্পনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করছে কি না তা প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নিজে নজরদারি করবেন বলে তিনি কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন।

সূত্র জানায়, স্কাউটস ও গার্ল গাইডস অ্যাসোসিয়েশনকে সম্পৃক্ত করে দেশের সব শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে অবহিত করার বিষয়ে সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় স্কাউটস ও গার্ল গাইডস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের মাধ্যমে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ ট্রাফিক সাইন, সড়ক দুর্ঘটনার কারণ, পথচারী, গাড়ি-মোটরবাইকচালক, যাত্রী ও যানবাহন মালিকের দায়িত্ব ও করণীয়সংবলিত লিফলেট বিতরণ করার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। একই সঙ্গে লিফলেটটির নির্দেশনাগুলো মেনে চলার সম্মতিসূচক স্বাক্ষর অভিভাবকদের কাছে থেকে নিয়ে নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমা দেওয়ার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হয়। এ ছাড়া লিফলেটটি দেশের সব মসজিদে জুমার নামাজের আগে পড়ে শোনানো, শিক্ষক বাতায়নে লিফলেটের তথ্য প্রকাশ; প্রাত্যহিক সমাবেশে শিক্ষার্থীদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে অবহিতকরণ; স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে গাড়িচালকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণ; ‘মা’ সমাবেশে ট্রাফিক আইন বিষয়ে আলোচনার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়।

সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ঢাকা মহানগর পুলিশ ও বাংলাদেশ স্কাউটসের জাতীয় পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই সভায় আটটি বিভাগের বিভাগীয় পর্যায়ের বিভিন্ন কর্মকর্তা এবং স্কাউটস ও গার্ল গাইডস অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তারাও সংযুক্ত ছিলেন।

 

 

 



মন্তব্য