kalerkantho

বরিশালে বাড়িতে স্ত্রীর রক্তাক্ত লাশ স্বামী পলাতক

বরিশাল অফিস   

২০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরিশালের বাকেরগঞ্জে দাম্পত্য কলহের জের ধরে এক তরুণীকে তাঁর স্বামী খুন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রবিবার সকালে উপজেলার কলকাঠী ইউনিয়নের বাগাদিয়া গ্রামের বাড়িতে রক্তাক্ত অবস্থায় তরুণীকে পাওয়া যায়। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা জানান তাঁর মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পর থেকে তাঁর স্বামী পলাতক রয়েছেন।

নিহত সুমাইয়া আক্তার (১৮) বাগাদিয়া গ্রামের মজিবর হাওলাদারের মেয়ে। তিনি বাকেরগঞ্জ মহিলা মাদরাসার দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন।

অভিযুক্ত রাকিব খান (২৫) পাশের পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার বেশকপুর গ্রামের সিরাজ খানের ছেলে।

পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সুমাইয়া ও রাকিবের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত মার্চ মাসে কাউকে কিছু না জানিয়ে তাঁরা বিয়ে করেন। কিন্তু কিছুদিন পর তাঁদের মধ্যে কলহ বাধে। রাকিবের বিরুদ্ধে সুমাইয়াকে শারীরিক নির্যাতন করারও অভিযোগ ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় সুমাইয়াকে গতকাল হত্যা করে রাকিব পালিয়েছেন।

সুমাইয়ার বাবা মজিবর হাওলাদার বলেন, গতকাল সকালে মেয়ে ও জামাইকে বাড়িতে রেখে ব্যক্তিগত কাজে তিনি ও তাঁর স্ত্রী বাইরে যান। বাড়িতে আর কেউ ছিল না। এর কয়েক ঘণ্টা পর সকাল ১১টার দিকে বাড়ি ফিরে মেয়েকে রক্তাক্ত অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। কিন্তু মেয়েজামাইকে পাওয়া যায়নি। বাকেরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা সুমাইয়াকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর দেওয়ার পর পুলিশ এসে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

বাকেরগঞ্জ থানার ওসি মো. মাসুদুজ্জামান জানান, হাসপাতাল থেকে সুমাইয়ার লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। তাঁর শরীরের একাধিক স্থানে রক্তাক্ত জখম রয়েছে। আঘাতের ধরন দেখে সুমাইয়াকে হত্যা করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করে বলা যায়। ওসি জানান, এ ঘটনায় নিহতর বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

 

 

মন্তব্য